বুধবার,১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


কুমিল্লার বুড়িচংয়ে সাংগঠনিক প্রক্রিয়ায় নাম বাছাই না করার অভিযোগ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৪.০১.২০২২


নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রার্থী মনোনয়নে ভুল হলে ব্রাক্ষণপাড়ার মত বুড়িচংয়েও নৌকার ভরাডুবির আশংকা করছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা। যথাযথ সাংগঠিনক প্রক্রিয়ায় নাম বাছাই না করায় এ আশংকা বাড়ছে তৃণমূলে । স্থানীয় আওয়ামীলীগের সূত্রে জানা যায়, বুডিচংয়ের ৯টি ইউনিয়নের প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য ঘরে বসে পছন্দের লোকদের নাম তালিকা করে কেন্দ্রে পাঠানোর প্রক্রিয়া করা হচ্ছে। কর্মীরা আশংকা করছেন, এতে সিনিয়র কয়েকজন নেতা তাদের ব্যক্তিস্বার্থে অনেক যোগ্য প্রার্থীর নাম বাদ দিয়ে বা কাউকে কাউকে কম গুরুত্বপূর্ণ দেখিয়ে কেন্দ্রে নাম পাঠাচ্ছেন। এতে যোগ্য প্রার্থীর নৌকা প্রতীক পাওয়া কঠিন হবে। যার ফল হতে পারে সম্প্রতি ভরাডুবি হওয়া পার্শ্ববর্তী ব্রাক্ষণপাড়া উপজেলার মত। যেখানে ৮ ইউপির ৬টিতেই ফেল করেছে নৌকা। মাত্র দুটিতে টেনেটুনে নৌকা পাশ করলেও ৬টির বেশ কয়েকটিতে ৩–৪ নাম্বারেও থাকতে পারেনি নৌকা। এ আশংকা এখন বুডিচং নিয়ে।

একই সংসদীয় আসনের অপর উপজেলায় আওয়ামী লীগের ভরাডুবির পর বিষয়টি নিয়ে বুড়িচং উপজেলায় এখন জোর আলোচনা-সমালোচনা চলছে। প্রাবীন নেতারা মনে করেন, প্রার্থী বাছাইয়ে ভূল হলে এই উপজেলায়ও নৌকার ভরাডুবি হতে পারে।

এদিকে এ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের ডজন নেতা নির্বাচনের লক্ষ্যে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। দলের মধ্যে আলাদা গ্রুপ তৈরী করে নিজেদের উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন। যার ফলে প্রতিটি ইউনিয়নে কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পরেছে ক্ষমতাসীন দলের নেতা কর্মীরা। ইতোমধ্যে প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে ডজন ডজন নেতা দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

নেতাকর্মীরা বলছেন, প্রার্থী বাছাইয়ে সঠিক ব্যক্তি নির্ধারণ করা না করা গেলে, সেক্ষেত্রে বুড়িচংয়েও ভরাডুবির শঙ্কা থেকে যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বুডিচংয়ের এক তৃণমূলের নেতা, ঘরে বসে পছন্দের লোকদের তালিকায় ঢুকিয়ে কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। সাংগঠিনক নিয়ম না মেনে পছন্দের লোকদের মনোনয়ন দেয়ার পায়তারা হচ্ছে। এতে দলের ত্যাগী, পরিশ্রমী, একনিষ্ঠ কর্মী এবং জনপ্রিয়রা দলীয় প্রতীক পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন। এমপি সাহেবও তৃণমূলের জনপ্রিয়দের অগ্রাহ্য করছেন বলে অভিযোগ করেন ওই নেতা।

প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা বিষ্ণু কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, অতীতের সকল নির্বাচনে ইউনিয়ন পর্যায়ের তৃনমূল কাউন্সিলরদের ভোটে প্রার্থী নির্ধারণ করা হলেও এবার ভিন্নতা দেখা গেছে। প্রার্থীর নাম ছাড়া খালি রেজুলেশনে স্বাক্ষর নেয়া হচ্ছে। ফলে তৃনমুলের মতামত উপেক্ষা করে প্রার্থী নির্ধারিত হওয়ার আশংকা রয়ে গেলো। এভাবে প্রার্থী নির্ধারণ করলে নৌকার ভরাডুবির শঙ্কা থেকেই যায়।

প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা আবদুর রশিদ বলেন, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার পুনরাবৃত্তি না ঘটতে চাইলে, তৃণমূলের মতামত ও প্রবীণ অভিজ্ঞ নেতাদের পরামর্শে প্রার্থী নির্ধারণ করতে হবে। তাছাড়া বুড়িচং উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন কমিটিতে অযোগ্য লোকজন বসে আছে। তাঁদের না সরালে নৌকার ভরাডুবির আশংকা থাকবে।

ঘোষিত তফছিল অনুযায়ী আগামী ৭ ফেব্রুয়ারী বুড়িচং উপজেলার রাজাপুর, বাকশীমূল, বুড়িচং সদর, ষোলনল, পীরযাত্রাপুর, ময়নামতি, মোকাম, ভারেল্লা উত্তর ও ভারেল্লা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট গ্রহণ হবে।
তফসিল অনুযায়ী ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রার্থীরা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। মনোনয়ন যাচাই-বাছাই হবে ১৫ জানুয়ারি। এ ছাড়া প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২২ জানুয়ারি।
বুড়িচং উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ জানান, নির্বাচন বিষয়ে সকল প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে, ইতোমধ্যে ৯ ইউনিয়নের ১০৩ কেন্দ্রে ভোট গ্রহনের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। সুষ্ঠু নির্বাচন করার লক্ষে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে বৈঠক হয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি