শনিবার,২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী হলেন যারা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৫.০১.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

অনিয়ম, সংঘর্ষ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ব্যালট পেপার ছিনতাইসহ বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচন শেষ হয়েছে। এ ধাপের ৭০৮ ইউনিয়নের মধ্যে ৪০টিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। ওই দিন নির্বাচনী সহিংসতায় অন্তত নয়জন নিহতসহ আহত হয়েছেন শতাধিক।

গত বুধবার (৫ জানুয়ারি) ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কর্মকর্তারা।

সিরাজগঞ্জ
জেলার তিন উপজেলার ১৮ ইউনিয়নের ১৪টিতে নৌকা ও বাকিগুলোতে স্বতন্ত্ররা নির্বাচিত হয়েছেন। এরমধ্যে সোনামুখী ইউনিয়নে শাহজাহান আলী খান, চালিতাডাঙ্গা ইউনিয়নে আতিকুর রহমান, গান্ধাইল ইউনিয়নে গোলাম হোসেন, শুভগাছা ইউনিয়নে গিয়াস উদ্দিন, কাজিপুরে কামরুজ্জামান, মাইজবাড়ী ইউনিয়নে শওকত হোসেন, খাসরাজবাড়ী ইউনিয়নে জহুরুল ইসলাম, চরগিরিশ ইউনিয়নে এসএম জিয়াউল হক, নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়নে আব্দুল মান্নান, তেকানী ইউনিয়নে হারুনার রশিদ নিশ্চিন্তপুর ইউনিয়নে খাইরুল ইসলাম, মনসুরনগর ইউনিয়নে আব্দুর রাজ্জাক বিজয়ী হয়েছেন।

তাড়াশ উপজেলার তালম ইউনিয়নে আব্দুল খালেক (নৌকা) ও মাগুড়া ইউনিয়নে মেহেদী হাসান ম্যাগনেট (নৌকা), দেশীগ্রাম ইউনিয়নে জ্ঞানেন্দ্রনাথ (স্বতন্ত্র) ও সগুনা ইউনিয়নে জুলফিকার আলী ভুট্টু (স্বতন্ত্র) প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছে।

রাজবাড়ী
পাংশা উপজেলার ১০ ইউনিয়নের আটটিতে নৌকা ও দুটিতে স্বতন্ত্ররা নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে মাছপাড়ায় খন্দকার সাইফুল ইসলাম বুড়ো (নৌকা), বাহাদুরপুরে মো. সজিব হোসেন (মোটর সাইকেল), হাবাসপুরে আল মামুন খান (চশমা), যশাইয়ে আবু হোসেন খান (নৌকা), কসবামাঝাইলে শাহরিয়ার সুফল মাহমুদ (নৌকা), সরিষায় মো. আজমল আল বাহার (নৌকা), পাট্টায় আব্দুর রব মুনা বিশ্বাস (নৌকা), কলিমহরে আওয়ামী লীগের মোছা. বিলকিছ বানু (নৌকা), মৌরাটে হাবিবুর রহমান (নৌকা) ও বাবুপাড়ায় ইমান আলী সরদার (নৌকা)।

নোয়াখালী
জেলার চাটখিল, সোনাইমুড়ী ও বেগমগঞ্জের ১৯ ইউনিয়নের ১২টিতে নৌকা ও বাকি ইউপিগুলোতে স্বতন্ত্ররা নির্বাচিত হয়েছেন। নৌকার জয়ীদের মধ্যে চাটখিল উপজেলার হাটপুকুরিয়ায় এস এম বাকী বিল্লাহ, পাঁচগাঁওয়ে সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, পরকোটে বাহার আলম, খিলপাড়ায় মো. আলমগীর হোসেন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা) ও সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরায় মো. মিরন অর রশীদ, নদনায় হারুন অর রশীদ, দেওটিতে নুরুল আমিন শাকিল, জয়াগে শওকত আকবর, বারগাঁওয়ে মো. সামছুল আলম, অম্বরনগরে মো. আক্তার হোসেন দুদু, নাটেশ্বরে মো. কবির হোসেন, সোনাপুরে মো. আলমগীর হোসেন বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

অন্যদিকে স্বতন্ত্র জয়ীদের মধ্যে চাটখিল উপজেলার সাহাপুরে আবদুল্যাহ খোকন, রামায়ণপুরে মো. হারুন অর রশীদ, মোহাম্মদপুরে মো. মেহেদী হাসান, বদলকোটে মো. সোলায়মান ও সোনাইমুড়ী উপজেলার চাষীরহাটে মো. হানিফ, আমিশাপাড়ায় খলিলুর রহমান এবং বেগমগঞ্জ উপজেলার জিরতলি ইউনিয়নে শামসুল আলম বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

বগুড়া
২২ ইউনিয়নের নয়টিতে আওয়ামী লীগ ১৩ টিতে স্বতন্ত্ররা নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে সান্তাহার ইউপিতে নাহিদ সুলতানা তৃপ্তি (নৌকা), ছাতিয়ানগ্রামের আব্দুল হক আবু (নৌকা), কুন্দগ্রামের শামীম উল ইসলাম (নৌকা), আদমদীঘি সদরে জিল্লুর রহমান (নৌকা), চাঁপাপুর ইউপিতে আব্দুস সালাম মাস্টার (চশমা), নশরতপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা গোলাম মোস্তফা (চশমা),

দুপচাঁচিয়া সদর ইউনিয়নের মোয়াজ্জেম হোসেন (মটরসাইকেল), গোবিন্দপুর ইউনিয়নের সাখাওয়াত হোসেন মল্লিক (আনারস), চামরুল ইউনিয়নের পুনরায় নির্বাচিত বর্তমান চেয়ারম্যান শাহজাহান আলী (ঘোড়া), গুনাহার ইউনিয়নে নুর মোহাম্মদ আবু তাহের (চশমা) ও জিয়ানগর ইউনিয়নের আনোয়ার হোসেন (আনারস)।

গাবতলী উপজেলার গাবতলী সদর ইউনিয়নে ফারুক আহম্মেদ ফারুক, নাড়ুয়ামালা ইউনিয়নে আব্দুল গফুর, বালিয়াদিঘী ইউনিয়নে ইউনুছ ফকির, দক্ষিণপাড়া ইউনিয়নে অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম, দুর্গাহাটা ইউনিয়নে শহীদুল কবীর টনি (মোটর সাইকেল), কাগইল ইউনিয়নে আব্দুর রশিদ মোল্লা (আনারস), রামেশ্বরপুর ইউনিয়নে আব্দুল ওহাব মণ্ডল (মোটর সাইকেল), মহিষাবান ইউনিয়নে আব্দুর মজিদ মণ্ডল (টেলিফোন) ও নশিপুর ইউনিয়নে রাজ্জাকুল আমিন তালুকদার রোকন (টেলিফোন) নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা ইউনিয়নে আহসান হাবীব সবুজ (নৌকা) ও শেরপুর উপজেলার গাড়ীদহ ইউপিতে মাওলানা তবিবর রহমান (স্বতন্ত্র) বিজয়ী হয়েছেন।

ময়মনসিংহ
গফরগাঁও-নান্দাইলের ২৬ ইউনিয়নে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। নান্দাইলের মোয়াজ্জেমপুরে মোছা. তাসলিমা আক্তার (নৌকা), নান্দাইলে মোশাররফ হোসেন কাজল (আনারস), চন্ডিপাশায় মো. শাহাব উদ্দিন ভূঁইয়া (মোটরসাইকেল), গাঙ্গাইলে মো. আসাদুজ্জামান (আনারস), রাজগাতীতে মো. ইফতেখার মমতাজ (আনারস), মুশুলীতে মো. ইফতেখার উদ্দিন ভূঁইয়া (নৌকা), সিংরইলে মো. সাইফুল ইসলাম (মোটরসাইকেল), আচারগাঁওয়ে মো. রফিকুল ইসলাম রেনু (আনারস), শেরপুরে মোয়াজ্জেম হোসেন মিল্টন ভূঁইয়া (নৌকা), খারুয়ায় মো. কামরুল হাসনাত ভূঁইয়া (নৌকা), জাহাঙ্গীরপুরে মো. কামাল উদ্দিন (নৌকা) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

গফরগাঁওয়ের নিগুয়ারীতে মো. তাজুল ইসলাম (নৌকা), টাংগাবরে মো. মোফাজ্জল হোসেন (নৌকা), মশাখালী ইউপিতে মোস্তফা কামাল খান (নৌকা) ও রসুলপুর ইউপিতে মঈনুল হক (চশমা) প্রতীকে নির্বাচিত হয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ
জেলার দুই উপজেলার ১৫ ইউনিয়নের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে মিঠামইন উপজেলার গোপদিঘী ইউনিয়নে মো. আনোয়ার হোসেন (মোটরসাইকেল), মিঠামইন সদর ইউনিয়নে মো. শরিফ কামাল, ঢাকি ইউনিয়নে লুৎফর রহমান রুবেল (মোটরসাইকেল), ঘাগড়া ইউনিয়নে মোখলেছুর রহমান (ঢোল), কেওয়ারজোড় ইউনিয়নে শহীদুল ইসলাম (দুইপাতা), কাটখাল ইউনিয়নে মো. তাজুল ইসলাম (ঘোড়া) ও বৈরাটি ইউনিয়নে মো. তাজুল ইসলাম (আনারস) নির্বাচিত হয়েছেন।

অষ্টগ্রাম উপজেলার দেওঘর ইউনিয়নে মো. আক্তার হোসেন (টেলিফোন), কাস্তল ইউনিয়নে সাইফুল হক (চশমা), অষ্টগ্রাম সদর ইউনিয়নে সৈয়দ ফাইয়াজ হাসান বাবু (মোটরসাইকেল), বাঙ্গালপাড়া ইউনিয়নে মো. মনিরুজ্জামান (ঘোড়া), কলমা ইউনিয়নে রাধাকৃষ্ণ দাস (ঘোড়া), আদমপুর ইউনিয়নে আবদুল মন্নাফ (আনারস), খয়েরপুর আবাদুল্লাহপুর ইউনিয়নে মো. আনোয়ার হোসেন খান (চশমা) ও পূর্ব অষ্টগ্রাম ইউনিয়নে মো. কাছেদ মিয়া (ঘোড়া) নির্বাচিত হয়েছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ
সদর উপ ছয় ইউনিয়নে নৌকা ও আটটিতে স্বতন্ত্ররা নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে সদর উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নে মো. জসিম উদ্দিন (নৌকা), ঝিলিম ইউনিয়নে গোলাম লুৎফর রহমান (নৌকা), বারঘরিয়া ইউনিয়নে হারুন-অর-রশীদ (নৌকা), সুন্দরপুর ইউনিয়নে হাবিবুর রহমান (নৌকা), দেবীনগর ইউনিয়নে হাফিজুর রহমান (নৌকা), মহারাজপুর ইউনিয়নে মো. নাহিদ ইসলাম রাজন (নৌকা), রানিহাটি ইউনিয়নে রহমত আলী (স্বতন্ত্র), গোবরাতলা ইউনিয়নে রবিউল ইসলাম টিপু (স্বতন্ত্র), শাহজাহানপুর ইউনিয়নে মো. তরিকুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নে শাহীদ রানা টিপু (নৌকা), আলাতুলী ইউনিয়নে জয়নাল আবেদীন (স্বতন্ত্র), চর অনুপনগর ইউনিয়নে এস আব্দুল বাদী (স্বতন্ত্র), বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নে আবু হেনা মো. আতাউল হক কমল (স্বতন্ত্র), নারায়নপুর ইউনিয়নে নাজির হোসেন (স্বতন্ত্র)

রাজশাহী
তিন উপজেলার ১৯ ইউনিয়নের একটি বাদে সবগুলোর ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নে একটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত থাকায় সে ইউনিয়নের ফল ঘোষণা করা হয়নি।

পুঠিয়া উপজেলার বেলপুকুরিয়া ইউনিয়নে বদিউজ্জাজামন (স্বতন্ত্র), দুর্গাপুর উপজেলার মাড়িয়া ইউনিয়নে জাহাঙ্গীর আলম সম্রাট (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।

বাগমারা উপজেলার গোবিন্দপাড়ায় হাবিবুর রহমান (স্বতন্ত্র), নরদাশে গোলাম সারওয়ার আবুল (নৌকা), দ্বীপপুরে বিকাশ চন্দ্র ভৌমিক (স্বতন্ত্র), বড়বিহানালীতে মাহমুদুর রহমান মিলন (স্বতন্ত্র), আউচপাড়ায় ডিএম. সাফিকুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), শ্রীপুরে মকবুল হোসেন মৃধা (নৌকা), বাসুপাড়ায় লুৎফর রহমান (নৌকা), কাচারী কোয়ালীপাড়ায় মোজাম্মেল হক (স্বতন্ত্র), শুভডাঙ্গায় মোশারফ হোসেন (স্বতন্ত্র), মাড়িয়ায় রেজাউল হক (স্বতন্ত্র), গণিপুরে মনিরুজ্জামান (স্বতন্ত্র), ঝিকরায় রফিকুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), গোয়ালকান্দিতে আলমগীর সরকার (নৌকা), হামিরকুৎসায় আনোয়ার হোসেন (স্বতন্ত্র), যোগীপাড়ায় এম এফ মাজেদুল হক সোহাগ (স্বতন্ত্র) ও সোনাডাঙ্গা ইউনিয়নে আজাহারুল হক (নৌকা) জয়লাভ করেছেন।

টাঙ্গাইল
জেলার তিনটি উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের সাতটিতে স্বতন্ত্র ও ছয়টিতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

এরমধ্যে বাসাইল উপজেলার কাউলজানী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আতাউল গনি হাবিব, হাবলা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে খোরশেদ আলম, কাঞ্চনপুর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে শামীম আল মামুন, ফুলকী ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে শামছুল আলম বিজু বিজয়ী হয়েছেন।

মির্জাপুর উপজেলার মহেড়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে বিভাস সরকার নুপুর, জামুর্কী ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে ডিএ মতিন, আনাইতারা ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে আবু হেনা মোস্তফা কামাল, বানাইল ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে আব্দুল্লাহ আল মামুন সিদ্দিকী, উয়ার্শী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মাহবুব আলম মল্লিক, ভাতগ্রাম ইউনিয়নে আজাহারুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), গোড়াই ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে হুমায়ূন কবীর আর বাঁশতৈল ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে প্রার্থী হেলাল দেওয়ান জয়লাভ করেন। এছাড়া ঘাটাইল উপজেলার জামুরিয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. শহিদুল ইসলাম খান (হেস্টিংস) নির্বাচিত হন।

সিলেট
জেলার দুই উপজেলার ১৭ ইউনিয়নে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এদের মধ্যে লক্ষ্মীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নে তমিজ উদ্দিন (নৌকা), লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়নে মাওলানা জামাল উদ্দিন (খেজুর গাছ), দিঘীরপাড় ইউনিয়নে আব্দুল মুমিন চৌধুরী (মোটরসাইকেল), সাঁতবাক ইউনিয়নে আবু ত্যায়িব শামীম (চশমা), বড়চতুল ইউনিয়নে আবদুল মালিক চৌধুরী (আনারস), সদর ইউনিয়নে আফসার উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী (নৌকা), দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নে লোকমান আহমদ (মোটরসাইকেল), ঝিঙাবাড়ী মাওলানা আবদুর রহমান (চশমা) ও রাজাগঞ্জ ইউনিয়নে মাওলানা শামসুল ইসলাম (খেজুর গাছ) বিজয়ী হয়েছেন।

জকিগঞ্জ উপজেলার বারহাল ইউনিয়নে মোস্তাক আহমদ চৌধুরী (স্বতন্ত্র), বীরশ্রী ইউনিয়নে আব্দুস সাত্তার (নৌকা), খলাছড়া ইউনিয়নে আব্দুল হক (স্বতন্ত্র), জকিগঞ্জ ইউনিয়নে মাওলানা আফতাব আহমদ (নৌকা), সুলতানপুর ইউনিয়নে রফিকুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), বারঠাকুরি ইউনিয়নের মহসিন মর্তুজা টিপু (নৌকা), কসকনকপুরে আলতাফ হোসেন লস্কর (স্বতন্ত্র), মানিকপুর ইউনিয়নে আবু জাফর মো. রায়হান (নৌকা) প্রতীকে বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়াও কাজলসার ইউনিয়ন ও সুলতানপুর ইউনিয়নের একটি কেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ
তিন উপজেলায় ১৮ ইউনিয়নের পাঁচটিতে নৌকা ও বাকিগুলোতে স্বতন্ত্ররা জয়লাভ করেছেন। এদের মধ্যে শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নে আব্দুলাহ আল নোমান (আনারস), হবিবপুর ইউনিয়নে সুবল চন্দ্র দাস (আনারস), বাহাড়া ইউনিয়নে বিশ্বজিৎ চৌধুরী নান্টু (ঘোড়া), শাল্লা ইউনিয়নে আব্দুস ছাত্তার (নৌকা) প্রতীকে বিজয়ী হয়েছেন।

জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নে সুব্রত সামন্ত সরকার (নৌকা), ফেনারবাঁক ইউনিয়নে কাজল তালুকদার (নৌকা), সাচনা বাজার ইউনিয়নে মো. মাসুক মিয়া (ঘোড়া), ভীমখালী ইউনিয়নে আক্তারুজ্জামান তালুকদার (ঘোড়া) প্রতীকে বিজয়ী হয়েছেন।

ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নে জুবায়ের পাশা হিমু (নৌকা), সেলবরষ ইউনিয়নে গোলাম ফরিদ খোকা (স্বতন্ত্র), পাইকুরাটি ইউনিয়নে মোজাম্মেল হক ইকবাল (স্বতন্ত্র), জয়শ্রী ইউনিয়নে সঞ্জয় রায় চৌধুরী (স্বতন্ত্র), সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নে নাসরিন সুলতানা দীপা (নৌকা), সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নে মোকাররম হোসেন (স্বতন্ত্র), মধ্যনগর ইউনিয়নে সঞ্জিব তালুকদার টিটু (স্বতন্ত্র), চামরদানি ইউনিয়নে আলমগীর খসরু (স্বতন্ত্র), বংশীকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নে রাসেল আহমেদ (স্বতন্ত্র) ও বংশীকুন্ডা ইউনিয়নে নুরুন্নবী (স্বতন্ত্র) বিজয়ী হয়েছেন।

সাভার (ঢাকা)
সাভারে নয় ইউনিয়নে নৌকা ও দুটিতে স্বতন্ত্ররা বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে বনগাঁও ইউনিয়নে সাইফুল ইসলাম (নৌকা), পাথালিয়া ইউনিয়নে পারভেজ দেওয়ান (নৌকা), ইয়ারপুর ইউনিয়নে সৈয়দ আহমেদ ভূঁইয়া (নৌকা), সাভার সদর ইউনিয়নে সোহেল রানা (নৌকা), আমিন বাজার ইউনিয়নে রকিব আহমেদ (নৌকা), আশুলিয়া ইউনিয়নে শাহাবুদ্দিন মাদবর (নৌকা), তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নে ফকরুল আলম সমর (নৌকা) ভাকুর্তা ইউনিয়নে হাজী লিয়াকত হোসেন (নৌকা), শিমুলিয়া ইউনিয়নে এ বি এম আজাহারুল ইসলাম সুরুজ (নৌকা), বিরুলিয়া ইউনিয়নে সেলিম মণ্ডল (আনারস) ও কাউন্দিয়া ইউনিয়নে সাইফুল ইসলাম খান (ঘোড়া) প্রতীকে বিজয়ী হয়েছেন।

সাতক্ষীরা
তিন উপজেলার নয়টিতে নৌকা ও সাত ইউনিয়নের স্বতন্ত্ররা জয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে আশাশুনি উপজেলার দরগাহপুরে শেখ মিরাজ আলী (নৌক), কাদাকাটি ইউনিয়নে দীপঙ্কর কুমার সরকার (নৌকা), খাজরা ইউনিয়নে শাহনেওয়াজ ডালিম (নৌকা), বুধহাটায় মাহবুবুল হক (নৌকা), আশাশুনি সদর ইউনিয়নে এসএম হোসেনুজ্জামান (নৌকা), শ্রীউলা ইউনিয়নে দীপঙ্কর বাছাড় (বিদ্রোহী), বড়দলে জগদীশ চন্দ্র সানা (বিদ্রোহী), কুল্যায় ওমর সাকি ফেরদৌস পলাশ (বিদ্রোহী), আনুলিয়ায় রুহুল কুদ্দুস (স্বতন্ত্র), শোভনালীতে আবু বকর সিদ্দিক (স্বতন্ত্র) ও প্রতাপনগরে আবু দাউদ ঢালী (স্বতন্ত্র) চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

শ্যামনগর সদর ইউনিয়নে অ্যাডভোকেট জহুরুল হায়দার (নৌকা), ঈশ্বরীপুরে জিএম শোকর আলী (নৌকা) ও ভুরুলিয়া ইউনিয়নে অধ্যক্ষ জাফরুল আলম (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন। কলারোয়া উপজেলার কেরালকাতা ইউনিয়নে স ম মোর্শেদ (নৌকা) ও কুশোডাঙা ইউনিয়নে সাঈদ আলী গাজী (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

শরীয়তপুর
জেলার দুই উপজেলার ১৫ ইউনিয়নের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে নড়িয়া উপজেলার মোক্তারের চর ইউনিয়নে আনোয়ার হোসেন বাদশা শেখ (মোটরসাইকেল), চরআত্রা ইউনিয়নে মো. এনায়েত উল্লাহ (মোটরসাইকেল), নশাসন ইউনিয়নে দেলোয়ার হোসেন তালুকদার (মোটরসাইকেল), ঘড়িসার ইউনিয়নে আব্দুর রব খান (মোটরসাইকেল), বিঝারী ইউনিয়নে আলি আহমেদ কাজি (চশমা), ভোজেশ্বর ইউনিয়নে শহিদুল ইসলাম সিকদার (আনারস), ফতেজঙ্গপুর ইউনিয়নে শওকত হোসেন জুয়েল শিউলি (আনারস), ভুমখাড়া ইউনিয়নে আলমগীর হোসেন দালাল (আনারস), রাজনগর ইউনিয়নে আবু আলেম মাদবর (আনারস), চামটা ইউনিয়নে মো. নিজাম উদ্দিন (অটোরিকশা), জপসা ইউনিয়নে আনোয়ার হোসেন মাদবর (আনারস), কেদারপুর ইউনিয়নে মিহির চক্রবর্তী (টেলিফোন), ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নে আলহাজ্ব আব্দুল আজিজ সরদার (চশমা), নওপাড়া ইউনিয়ন জাকির মুন্সী (আনারস) ও জাজিরা উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নে কাজী আমিনুল ইসলাম মিন্টু (মোটরসাইকেল) বিজয়ী হয়েছেন।

পঞ্চগড়
জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলায় নৌকা স্বতন্ত্র সমানে সমান। এ উপজেলার আট ইউনিয়নের চারটিতে নৌকা ও বাকি চারটিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। বিজয়ীদের মধ্যে উপজেলার চেংঠী হাজরাডাঙ্গা ইউনিয়নে আমিনুর রহমান (নৌকা), পামুলী ইউনিয়নে মনিভুষণ রায় (নৌকা), দন্ডপাল ইউনিয়নে মো. আজগর আলী (নৌকা), টেপ্রীগঞ্জ ইউনিয়নে গোলাম রহমান সরকার (নৌকা), শালডাঙ্গা ইউনিয়নে মো. ফরিদুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), সুন্দরদীঘি ইউনিয়নে আব্দুল হালিম (স্বতন্ত্র), সোনাহার মল্লিকাদহ ইউনিয়নে মো. মশিউর রহমান (স্বতন্ত্র) ও চিলাহাটি ইউনিয়নে হারুন অর রশিদ (স্বতন্ত্র) নির্বাচিত হয়েছেন।

পাবনা
বেড়া উপজেলার নয় ইউনিয়নের তিনতে নৌকা ও বাকিগুলোতে স্বতন্ত্ররা বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে পুরানভারেঙ্গা এ এম রফিক উল্লাহ (নৌকা), মাশুমদিয়া মো. শহিদুর রহমান (নৌকা) জাতসাখিনীতে আবুল কালাম আজাদ মানিক (বিদ্রোহী), ঢালারচরে মো. কোরবান আলী (নৌকা), চাকলায় মো. ইদ্রিস আলী (বিদ্রোহী), রুপপুরে মাজহারুল ইসলাম মোহন (বিদ্রোহী), নতুন ভারেঙ্গা আবু দাউদ (বিদ্রোহী), হাটুরিয়া-নাকালিয়া আব্দুল হামিদ (বিদ্রোহী), কৈটলা মো. মহসিন উদ্দিন পিপুল (স্বতন্ত্র) নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে এ এম রফিক উল্লাহ ও মো. শহিদুর রহমান বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

ফরিদপুর উপজেলার বনওয়ারীনর ইউনিয়নে জিয়াউর রহমান (ঘোড়া), ফরিদপুর ইউনিয়নে সরোয়ার হোসেন (নৌকা), হাদল ইউনিয়নে সেলিম রেজা (নৌকা), বৃলাহিড়িবাড়ী ইউনিয়নে জাহিদুল ইসলাম রিপন (নৌকা), ডেমড়া ইউনিয়নে জুয়েল রানা (স্বতন্ত্র) ও পুঙ্গলী ইউনিয়নে সাজিদুল ইসলাম (নৌকা)।

নওগাঁ
জেলার তিন উপজেলার ২৩ ইউনিয়নের মধ্যে ১৯টির ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচনে সহিংসতার কারণে ঘোষনগর, কৃষ্ণপুর, পত্মীতলা ও আকবরপুর ইউনিয়নের ভোটের ফল স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন।

সাপাহার সদর ইউনিয়নে সাদেকুল ইসলাম (নৌকা), গোয়ালা ইউনিয়নে কামরুজ্জামান (নৌকা), তিলনা ইউনিয়নে মোসলেম উদ্দিন (নৌকা), পাতাড়ী ইউনিয়নে জাহাঙ্গীর আলম (নৌকা), শিরন্টি ইউনিয়নে বোরহান উদ্দিন (নৌকা) ও আইহাই ইউনিয়নে জিয়ারুজ্জামান টিটু (স্বতন্ত্র) নির্বাচিত হয়েছেন।

পোরশা উপজেলার নিতপুর ইউনিয়নে এনামুল হক, তেঁতুলিয়া ইউনিয়নে ফজলুল হক শাহ্ চৌধুরী, ছাওড় ইউনিয়নে মোস্তাফিজুর রহমান, গাঙ্গুরিয়া ইউনিয়নে আনিসুর রহমান, ঘাটনগর ইউনিয়নে বজলুর রহমান ও মশিদপুর ইউনিয়নে হারুন অর রশিদ নির্বাচিত হয়েছেন। এরা সবাই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী।

অপরদিকে, পত্মীতলা উপজেলা মাটিন্দর ইউনিয়নে সুলতান মাহমুদ (নৌকা), নির্মইলে আবুল কালাম আজাদ (নৌকা), পাটিচড়া ইউনিয়নে ছবেদুল ইসলাম রনি (স্বতন্ত্র), আমাইড় ইউনিয়নে শহীদুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), শিহাড়া ইউনিয়নে তোফাজ্জল হোসেন (স্বতন্ত্র), নজিপুর ইউনিয়নে হাবিবুর রহমান মিন্টু (স্বতন্ত্র) ও দিবর ইউনিয়নে রাহাদ জামান (স্বতন্ত্র) নির্বাচিত হয়েছেন। এ উপজেলার ঘোষনগর, কৃষ্ণপুর, পত্মীতলা ও আকবরপুর ইউনিয়নের ফলাফল স্থগিত হয়েছে।

নেত্রকোনা
দুই উপজেলার ১১ ইউপিতে নৌকা ও ১০টিতে স্বতন্ত্ররা বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে মদন উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নে সাফায়েত উল্লাহ (নৌকা), চাঁনগাঁওয়ে মো. নুরুল আলম তালুকদার (আনারস), মদনে মো. খায়রুল ইসলাম (নৌকা), গোবিন্দশ্রীতে মাইদুল ইসলাম খান (ঘোড়া), মাঘানে জহিরুল ইসলাম (আনারস), তিয়শ্রীতে মো. মজিবুর রহমান (নৌকা), নায়েকপুরে মো. হাবিবুর রহমান (চশমা) ও ফতেপুর ইউনিয়নে সামিউল হায়দার (চশমা) নির্বাচিত হয়েছেন।

কেন্দুয়া উপজেলার আশুজিয়া ইউনিয়নে মো. মঞ্জুর আলী (নৌকা), দলপায়ে মো. শাহীন মিয়া (নৌকা), গড়াডোবায় মো. কামরুজ্জামান খান (নৌকা), সান্দিকোনায় মো. আজিজুর ইসলাম (নৌকা), মাসকায় আবদুস ছালাম বাঙালি (নৌকা), পাইকুড়ায় মো. ইসলাম উদ্দিন (নৌকা), মোজাফরপুরে মো. জাকির আলম ভুঁঞা (নৌকা), চিরাংয়ে মো. এনামুল কবির খান (নৌকা), গন্ডায় মো. শহিদুল ইসলাম আকন্দ (আনারস), বলাইশিমুলে মো. ফজলুর রহমান (ঘোড়া), নওপাড়ায় সারোয়ার জাহান (ঘোড়া), কান্দিউড়ায় মো. মাহাবুব আলম (ঘোড়া) ও রোয়ালইল বাড়ি আমতলায় মো. লুৎফুর রহমান আকন্দ (ঘোড়া) বিজয়ী হয়েছেন।

নাটোর
জেলার নলডাঙ্গায় দুটিতে আওয়ামী লীগ ও তিন ইউপিতে স্বতন্ত্ররা জয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে ব্রহ্মপুর ইউনিয়নে আশরাফুজ্জামান মিঠু (স্বতন্ত্র), মাধনগর ইউনিয়নে জব্বার মৃধা (স্বতন্ত্র), খাজুরা ইউনিয়নে সোহরাব হোসেন (নৌকা), পিপরুল ইউনিয়নে কলিম উদ্দিন (নৌকা), বিপ্রবেলঘড়িয়া ইউনিয়নে শাহজাহান আলী (স্বতন্ত্র) নির্বাচিত হয়েছেন।

মৌলভীবাজার
শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলার ১০ ইউনিয়নে নৌকা ও বাকি ৮টি স্বতন্ত্রপ্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ীদের মধ্যে শ্রীমঙ্গলের মির্জাপুর ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে মিজলু আহমদ চৌধুরী, ভূনবীর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. আব্দুর রশীদ, শ্রীমঙ্গল সদর ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে দুদু মিয়া, সিন্দুরখান ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে ইয়াসিন আরাফাত রবিন, কালাপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে এম এ মোতালেব, আশিদ্রোণ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে রণেন্দ্র প্রসাদ বর্ধন, রাজঘাট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে বিজয় বোনার্জী, কালিঘাট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে প্রাণেশ গোয়ালা ও সাতগাঁও ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে দেবাশীষ দেব নির্বাচিত হয়েছেন।

কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নে আব্দুল হান্নান (নৌকা), রহিমপুর ইউনিয়নে ইফেতখার আহমদ বদরুল (নৌকা), পতনঊষার ইউনিয়নে অলি আহমদ খান (আনারস), মুন্সিবাজার ইউনিয়নে নাহিদ আহমদ তরফদার (আনারস), শমসেরনগর ইউনিয়নে জুয়েল আহমদ (আনারস), আলীনগর ইউনিয়নে নিয়াজ মোর্শেদ রাজু (আনারস), আদমপুর ইউনিয়নে আবদাল হোসেন (ঘোড়া), মাধবপুর ইউনিয়নে আসিদ আলী (নৌকা) ও ইসলামপুর ইউনিয়নে সুলেমান মিয়া (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
উপজেলার আট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে তিনজন ও বাকি পাঁচ ইউপিতে স্বতন্ত্ররা জয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে গোড়াই ইউনিয়নে হুমায়ুন কবীর (নৌকা), উয়ার্শী ইউনিয়নে মাহাবুব আলম মল্লিক হুরমহল (নৌকা), মহেড়া ইউনিয়নে বিভাস সরকার নুপুর (নৌকা), আনাইতারা ইউনিয়নে আবু হেনা মোস্তফা কামাল ময়নাল (আনারস), বাঁশতৈল ইউনিয়নে হেলাল দেওয়ান (চশমা), ভাতগ্রাম ইউনিয়নে আজহারুল ইসলাম (আনারস), বানাইল ইউনিয়নে আব্দুল্লাহ আল মামুন সিদ্দিকী (ঘোড়া) ও জামুর্কী ইউনিয়নে ডি এ মতিন (আনারস) বিজয়ী হয়েছেন।

মাদারীপুর
পঞ্চম ধাপে ইউপি নির্বাচনে জেলার শিবচরের বন্দোরখোলা ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে আবদুর রহমান খান সাদ্দাম ও কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মোহসেন উদ্দিন সোহেল নির্বাচিত হয়েছেন।

লালমনিরহাট
পাটগ্রাম উপজেলায় ছয় ইউপিতে নৌকা ও একটিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নে মো. রফিকুল ইসলাম প্রধান (নৌকা), পাটগ্রাম ইউনিয়নে মোখলেছার রহমান (আনারস), জগতবেড় ইউনিয়নে মো. মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল (নৌকা), কুচলিবাড়ী ইউনিয়নে মো. হামিদুল হক (নৌকা), জোংড়া ইউনিয়নে মো. মজিবর রহমান (নৌকা), দহগ্রাম ইউনিয়নে হাবিবুর রহমান (নৌকা) ও বুড়িমারী ইউনিয়নে মো. তাহাজুল ইসলাম মিঠু (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।

কুষ্টিয়া
সদরে একটিতে নৌকা ও ১০ ইউনিয়নে স্বতন্ত্রপ্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন- গোস্বামী দূর্গাপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে লাল্টু রহমান, উজানগ্রাম ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সানোয়ার হোসেন মোল্লা, মনোহরদিয়া ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে জহুরুল ইসলাম জহুর, হরিনারায়ণপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে মেহেদী হাসান সম্রাট, আইলচারা ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সিদ্দিকুর রহমান, হাটশ হরিপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে এম মোস্তাক হোসেন মাসুদ, ঝাউদিয়া ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে মেহেদী হাসান, আলামপুর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস, বটতৈল ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে মিজানুর রহমান মিন্টু ফকির, আব্দালপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে আলী হায়দার স্বপন ও পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে রোকনুজ্জামান কানু নির্বাচিত হয়েছেন।

কুড়িগ্রাম
রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলার ছয় ইউনিয়নের চারটিতেই হেরেছে নৌকা। বিজয়ীদের মধ্যে রৌমারী ইউপিতে ঘোড়া প্রতীকে আব্দুর রাজ্জাক, শৌলমারী ইউপিতে নৌকা প্রতীকে নজরুল ইসলাম ও যাদুরচর ইউপিতে ঘোড়া প্রতীকে সরবেশ আলী বিজয়ী হয়েছেন।

রাজিবপুর ইউপিতে ঘোড়া প্রতীকে মো. ইলিয়াস, কোদালকাটি ইউপিতে নৌকা প্রতীকে হুমায়ুন কবির ও মোহনগঞ্জ ইউপিতে লাঙ্গল প্রতীকে মো. আনোয়ার হোসেন বিজয়ী হয়েছেন

যশোর
জেলার ২৬ ইউনিয়নে ১৪টিতে নৌকা ও ১১টিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এক ইউনিয়নের এক কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত হওয়ায় ফলাফল দেওয়া হয়নি। এরমধ্যে সদর উপজেলার হৈবতপুর ইউনিয়নে আবু সিদ্দিক (নৌকা), লেবুতলা ইউনিয়নে আলিমুজ্জামান মিলন (নৌকা), ইছালীতে ফেরদৌসী ইয়াসমিন (নৌকা), নওয়াপাড়ায় হুমায়ুন কবীর তুহিন (বিদ্রোহী), উপশহর ইউনিয়নে এহসানুর রহমান লিটু (নৌকা), কাশিমপুরে শরিফুল ইসলাম (নৌকা), চুড়ামনকাটিতে দাউদ হোসেন (নৌকা), দেয়াড়া ইউপিতে আনিসুর রহমান (বিদ্রোহী), আরবপুর ইউনিয়নে মীর আরশাদ আলী রহমান (নৌকা), চাঁচড়া ইউপিতে শামীম রেজা (বিদ্রোহী), রামনগর ইউপিতে মাহমুদুল হাসান লাইফ (বিদ্রোহী), ফতেপুর ইউপিতে সোহরাব হোসেন (নৌকা), নরেন্দ্রপুর ইউপিতে রাজু আহমেদ (বিদ্রোহী), কচুয়া ইউপিতে লুৎফর রহমান ধাবক (নৌকা) ও বসুন্দিয়া ইউপিতে রিয়াজুল ইসলাম খান রাসেল (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।

কেশবপুর উপজেলার ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে আনিছুর রহমান (আনারস), সাগরদাঁড়ী ইউনিয়নে কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম (চশমা), মজিদপুর ইউনিয়নে হুমায়ুন কবির পলাশ (আনারস) বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নে আমজাদ হোসেন (আনারস), মঙ্গলকোট ইউনিয়নে আব্দুল কাদের বিশ্বাস (নৌকা), পাঁজিয়া ইউনিয়নে জসিম উদ্দিন (নৌকা), সুফলাকাটি ইউনিয়নে এস এম মুনজুর রহমান (চশমা), গৌরীঘোনা ইউনিয়নে এস এম হাবিবুর রহমান হাবিব (নৌকা), সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে গোলাম মোস্তফা (চশমা) ও হাসানপুর ইউনিয়নে তৌহিদুজ্জামান (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।

হবিগঞ্জ
জেলার দুই উপজেলায় পাঁচ ইউপিতে নৌকা ও ১৬টিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নে মক্কার জেদ্দানগর বিএনপি সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, আহম্মদাবাদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জাকির হোসেন পলাশ ও দেওরগাছে মো. মহিতুর রহমান সুমন ফরাজি, পাইকপাড়ায় নৌকা প্রতীকের মো. ওয়াহেদ আলী মাস্টার, শানখলায় জামায়াত সমর্থিত অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, চুনারুঘাট সদর ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, উবহাটায় বিএনপি নেতা এজাজ ঠাকুর চৌধুরী, সাটিয়াজুরীতে নৌকা প্রতীকে আবদালুর রহমান, রাণীগাও নৌকা প্রতীকে মোস্তাফিজুর রহমান রিপন ও নৌকা প্রতীক নিয়ে মিরাশি ইউনিয়নে মানিক সরকার নির্বাচিত হয়েছেন।

মাধবপুর উপজেলার জগদীশপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মাসুদ খান, আন্দিউড়ায় নৌকা প্রতীকে আতিকুর রহমান, বহরায় নৌকা প্রতীকের মো. আলাউদ্দিন, বাঘাসুরা স্বতন্ত্রপ্রার্থী সাহাব উদ্দিন, ধর্মঘরে নৌকা প্রতীকের ফারুক আহমেদ পারুল, চৌমুহনীতে বিএনপির মাহবুবুর রহমান সোহাগ, শাহজাহানপুরে বিএনপির পারভেজ আলম চৌধুরী, ছাতিয়াইনে বিএনপি মিনহাজ উদ্দিন আহমেদ কাসেদ, নোয়াপাড়ায় বিএনপির সৈয়দ সোহেল আদাঐর ইউনিয়নে মীর খোরশেদ আলম ও বুল্লা ইউনিয়নে মিজানুর রহমান মিজান নির্বাচিত হয়েছেন।

গাইবান্ধা
সমানে সমান নৌকা ও স্বতন্ত্র। এখানে আটটি নৌকা ও বাকি আটটিতে স্বতন্ত্র ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা নির্বাচিত হন। নির্বাচিতদের মধ্যে সাঘাটা উপজেলার কচুয়া ইউনিয়নে মো. লিয়াকত আলী খন্দকার (স্বতন্ত্র), কামালেরপাড়ায় মো. সাহিনুর ইসলাম (স্বতন্ত্র), জুমারবাড়িতে মো. আমিরুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), পদুমশহরে মো. মফিজুল হক (স্বতন্ত্র), বোনারপাড়ায় মো. নাছিরুল আলম স্বপন (নৌকা), ভরতখালিতে মো. ফারুক হোসেন (স্বতন্ত্র), মুক্তিনগরে আহসান হাবীব (স্বতন্ত্র), হলদিয়ায় মো. রফিকুল ইসলাম (নৌকা) ও সাঘাটা ইউনিয়নে মো. মোশাররফ হোসেন সুইট (নৌকা)।

ফুলছড়ির উপজেলার উদাখালী ইউনিয়নে মো. আল আমিন (লাঙল), উড়িয়ায় মো. গোলাম মোস্তফা কামাল পাশা (নৌকা), এরেন্ডাবাড়িতে আব্দুল মান্নান আকন্দ (নৌকা), কঞ্চিপাড়ায় মো. সোহেল রানা শালু (নৌকা), গজারিয়ায় মো. খোরশেদ আলী খান (স্বতন্ত্র) ও ফুলছড়ি ইউনিয়নে মো. আজহারুল হান্নান (নৌকা) এবং গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামারদহ ইউনিয়নে মো. তৌকির হাসান (নৌকা) নির্বাচিত হয়েছেন।

ফরিদপুর
নির্বাচনে পাঁচ ইউপিতে নৌকা প্রতীক ও আটটিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে মধুখালী উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের সামছুল ইসলাম বাচ্চু, বাগাট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের মতিয়ার রহমান খান, কামারখালী ইউনিয়নে রাকিব হোসেন চৌধুরী ইরান ও রায়পুর ইউনিয়নে মো. জাকির হোসেন স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেন।

সদরপুর সদর ইউনিয়নে মটরসাইকেল প্রতীকে কাজী জাফর, ভাষানচর ইউনিয়নে টেবিলফ্যান প্রতীকে গোলাম কাউসার, দিয়ারা নারিকেল বাড়িয়া ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে মো. নাসির উদ্দিন সরদার, চর নাসিরপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে রোকন মোল্যা, চরবিষ্ণপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে মোয়াজ্জেম হোসেন, চরমানাইর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে রফিকুল ইসলাম, কৃষ্ণপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আকতারুজ্জামান তিতাস, আকোটেরচর ইউনিয়নে আসলাম ব্যাপারী ও ঢেউখালী ইউনিয়নে মো. মিজানুর রহমান নির্বাচিত হয়েছেন।

ফেনী
সদর উপজেলার ১২ ইউনিয়নেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এরমধ্যে ছনুয়া ইউনিয়নে করিমুল্লাহ বিকম, ধলিয়া ইউনিয়নে আনোয়ার আহমদ মুন্সি, লেমুয়া ইউনিয়নে মোশারফ উদ্দিন নাসিম, পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নে মাহবুবুল হক লিটন, ফরহাদ নগর ইউনিয়নের মোশারফ হোসেন টিপু।

এর আগে একক প্রার্থী থাকায় শর্শদী ইউনিয়নে জানে আলম ভূঁইয়া, ধর্মপুর ইউনিয়নে সাখাওয়াত হোসেন শাকা, বালিগাঁও ইউনিয়নে মোজাম্মেল হক বাহার, মোটবী ইউনিয়নে হারুন অর রশিদ এলএলবি, কাজিরবাগ ইউনিয়নে কাজী বুলবুল আহমেদ সেহাগ ও কালিদহ ইউনিয়নে দেলোয়ার হোসেন ডালিম বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

চাঁদপুর
জেলার কচুয়া, ফরিদগঞ্জ ও হাইমচর উপজেলার ২৯ ইউনিয়নের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। এদের মধ্যে ১০টিতে নৌকা ও বাকি ১৯ ইউনিয়নে স্বতন্ত্রপ্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

বিজয়ীদের মধ্যে কচুয়া উপজেলার সাচার ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে মনির হোসেন, পাথৈর ইউনিয়নে আনারস আলী আক্কাস, বিতারা ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে ইসহাক সিকদার, পালাখাল মডেল ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে মানিক হাবিব মজুমদার জয়, পশ্চিম সহদেবপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আলমগীর হোসেন, উত্তর কচুয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আখতার হোসাইইন, কচুয়া দক্ষিণ ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে খন্দকার আরিফজ্জুমান আরিফ, কাদলা ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে নূরে-ই আলম রিহাত, কড়ইয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আবদুস সালাম সওদাগর, গোহট উত্তর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে কবির হোসেন, গোহট দক্ষিণ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আমির হোসেন ও আশ্রাফপুর ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে গোলাম মাওলা হেলাল মুন্সী নির্বাচিত হয়েছেন।

ফরিদগঞ্জের বালিথুবা পশ্চিম ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মো. জসিম উদ্দিন মিয়াজী স্বপন, বালিথুবা পূর্ব ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মো. হারুন-অর-রশীদ, সুবিদপুর (পূর্ব) ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে মো. বেলায়েত হোসেন, সুবিদপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মো. মহসীন হোসেন, গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে মো. শাহজাহান পাটোয়ারী, গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মো. বুলবুল আহমেদ (আনারস), পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে আবু তাহের (আবু পাটোয়ারী), গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে শেখ মো. শাহ আলম, গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. আলাউদ্দিন ভূঁইয়া, চরদু:খিয়া পূর্ব ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মাহমুদুল হাসান মিরাজ, চরদু:খিয়া পশ্চিম ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মোহাম্মদ শাহজাহান মাস্টার, রূপসা উত্তর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে কাউছার-উল-আলম কামরুল ও রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. শরীফ হোসেন খান নির্বাচিত হয়েছেন।

হাইমচরের আলগী দুর্গাপুর উত্তর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. আতিকুর রহমান পাটোয়ারী, আলগী দুর্গাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সরদার আব্দুল জলিল মাস্টার, নীলকমল ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে সাউদ আল নাছের ও হাইমচর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে জুলফিকার আলী জুলহাস নির্বাচিত হয়েছেন।

ভোলা
সদর উপজেলার নয় ইউনিয়নে নৌকা ও তিনটিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে শিবপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. জসিম উদ্দিন, আলী নগর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের মো. বশির আহাম্মদ, দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ইফতারুল হাসান স্বপন, উত্তর দিঘলদী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. লিয়াকত হোসেন মনসুর, বাপ্তা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লা, ধনিয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. এমদাদ হোসেন কবির, ভেলুমিয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আবদুছ সালাম মাস্টার, চর সামাইয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. মহিউদ্দিন মাতাব্বর, পশ্চিম ইলিশা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. জহিরুল ইসলাম জহির, ভেদুরিয়া ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মো. মোস্তফা কামাল, রাজাপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে মো. রেজাউল হক মিঠু চৌধুরী ও পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মো. আনোয়ার হোসেন ছোটন নির্বাচিত হয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নৌকা প্রতীকের ছয়জন ও ১২ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে কামরুল হাসান, সুহিলপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আব্দুর রশিদ ভূঁইয়া, বুধল ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে আতিকুর রহমান, তালশহর পূর্ব ইউনিয়নের চশমা প্রতীকে মনিরুল ইসলাম, নাটাই উত্তর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে আবু ছায়েদ, সাদেকপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে নাছির উদ্দিন, রামরাইল ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে মশিউর রহমান সেলিম, সুলতানপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে শেখ ওমর ফারুক, মাছিহাতা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আল আমিনুল পাভেল ও বাসুদেব ইউনিয়নে স্বতন্ত্রপ্রার্থী আব্দুল হাকিম মোল্লা নির্বাচিত হয়েছেন।

আশুগঞ্জ উপজেলার আড়াইসিধা ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে আবু ছায়েম, সদর ইউনিয়নে মোটর সাইকেল প্রতীকে শফিকুল ইসলাম, চরচারতলা ইউনিয়নে মোটর সাইকেল প্রতীকে ফাইজুর রহমান, দূর্গাপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে রাসেল মিয়া, লালপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মোরশেদ মিয়া, তালশহর পশ্চিম ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে সোলাইমান মিয়া, শরীফপুর ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে সাইফ উদ্দিন ও তারুয়া ইউনিয়নে অনারস প্রতীকে বাদল সাদির নির্বাচিত হয়েছেন।

বান্দরবান
বান্দরবানের তিন ইউপি নির্বাচনে একটিতে আওয়ামী লীগ ও দুটিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থীর জয় হয়েছে। এদের মধ্যে কুহালং ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মংপ্রু মার্মা, সুয়ালক ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে উক্যনু মার্মা ও টংকাবতী ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে মাংইয়াং ম্রো বিজয়ী হয়েছেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি