শনিবার,২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে উত্তাল শাবি ক্যাম্পাস


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.০১.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

উপাচার্য ড. ফরিদ উদ্দিনের পদত্যাগের দাবিতে গতকাল দিনভর উত্তাল ছিল শাবি ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীরা নানা স্লোগানে মুখরিত করে ক্যাম্পাস। বিকালে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয় এবং একাডেমিক ও অফিস ভবনে তারা তালা ঝুলিয়ে দেয়। শাবি প্রশাসনের দেওয়া হল ছাড়ার নিদর্শেনাকে প্রত্যাখ্যান করে দিনভর আন্দোলন এবং অধিকাংশ অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি শিক্ষকদের বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টার ত্যাগ করার জন্যও বলে তারা। গত রবিবার শাবি প্রশাসনের সহযোগিতায় শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সোমবার তারা এ আন্দোলনে নামে। পাশাপাশি, ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদকে শাবি ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে শিক্ষার্থীরা। রাত সাড়ে ৮টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তারা ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয়। এতে ক্যাম্পাসে থমথমে পরিবেশ ও সর্বত্র উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছিল।

এদিকে ক্যাম্পাসের সার্বিক ঘটনা তদন্তের জন্য ফিজিক্যাল সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো রাশেদ তালুকদারকে আহ্বায়ক এবং রেজিস্ট্রার মো. ইশফাকুল হোসেন সদস্য করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অনুষদের ডিনবৃন্দ এই কমিটির সদস্য থাকবেন বলে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়। এছাড়া ক্যাম্পাসের এ ঘটনায় শাবি শিক্ষক সমিতি, বিভিন্ন বিভাগের অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, শাবি অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনসহ বিভিন্ন সংগঠন বিবৃতি দিয়েছে।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে রবিবার পদত্যাগ করেন আলোচিত হল প্রভোস্ট জাফরিন আহমেদ লিজা এবং নতুন করে প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে শাবির পদার্থ বিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. নাজিয়া চৌধুরীকে।

জানা যায়, শাবির সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হলের দায়িত্বপ্রাপ্ত হল প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক জাফরিন আহমেদ লিজার বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে শনিবার রাতে ছাত্রীরা প্রতিবাদ করলে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা তাদের ওপর হামলা চালায়। এর প্রতিবাদে রবিবার শাবির সড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. তুলসী কুমার দাস আন্দোলনকারী ছাত্রীদের কাছে এক সপ্তাহ সময় চান। কিন্তু ভুক্তভোগী ছাত্রীরা জানান গালিগালাজকারী প্রভোস্টকে এখনই পদত্যাগ করতে হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার বিচার চান তারা।

এ সময় উপাচার্য ভবন থেকে শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বের হলে আন্দোলনকারী ছাত্রীরা তার পথরোধ করেন। একপর্যায়ে, তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইসিটি বিল্ডিংয়ের মধ্যে অবস্থান নেন। একপর্যায়ে পুলিশ এসে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে ভিসিকে উদ্ধার করে। এসময় প্রায় অর্ধশত আন্দোলনকারী আহত হয়।

এ বিষয়ে আন্দোলনকারীরা ইত্তেফাককে বলেন, আমাদের এখন একটাই দাবি উপাচার্যের পদত্যাগ চাই। এ লক্ষ্য সকাল থেকে আমরা ক্যাম্পাসে অবস্থান করছি।

এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস, পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করা করে আবাসিক শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয় শাবি প্রশাসন। কিন্তু, প্রশাসনের এ নির্দেশনাকে প্রত্যাখ্যান করে ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে গতকাল সকাল থেকে আন্দোলন নামে শাবি শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের চিকিৎসা খরচ নিতে অস্বীকৃতি:
এদিকে শাবি রেজিস্ট্রার মো. ইশফাকুল হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ক্যাম্পাসে সংঘটিত দুঃখজনক ঘটনায় আহতদের চিকিৎসার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে । এছাড়া আহতদের চিকিৎসাজনিত যাবতীয় ব্যয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বহন করবে। তবে আহত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এ চিকিৎসা খরচ নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে বলে জানা যায়। রবিবার পুলিশের ছোড়া রাবার বুলেট ও লাঠিচার্জে আহতদের কয়েক জন হলেন, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম, ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদ, শিক্ষার্থী তানহা তাহসীন, মিত্রা সংঘ, সজল কুন্ডু, মেহজাবিন পর্ণা, সজল কুণ্ডু, সাজেদুল ইসলাম সিজন, তাকিয়া ইসলাম, জুনায়েদ ইসলাম, সাজ্জাদ হোসেন, মসিউর ইসলাম, ইরফান, রায়হান আহমেদ, মুনির হোসেন তালুকদার, সেলিম এবং তমাল, সিফাত আকাশ, জাহিদুল ইসলাম অপূর্ব, হুমায়ূন কবির অপূর্বসহ আরো অনেকে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি