শনিবার,২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


কুসিক কাউন্সিলর সোহেলের ওয়ার্ডের শূণ্য পদে প্রার্থী হতে চান স্ত্রী ভাই ও স্বজনরা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.০১.২০২২


দেলোয়ার হোসাইন আকাইদ:
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সোহেল খুন হওয়ার পর মৃত্যুজনিত কারনে এ পদটি শূন্য ঘোষনা করে মন্ত্রনালয়। এ ওয়ার্ডে তাঁর উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত ও ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে কাজ করতে চান স্ত্রী ভাইসহ আরো অনেকে। ওয়ার্ড কাউন্সির প্রার্থী হিসেবে এরই মধ্যে নিজেদের জানান দিচ্ছেন তারা। এর মধ্যে নিহত সোহেলের স্ত্রী শাহনাজ আক্তার রোনা, ভাই যুবলীগ নেতা সৈয়দ রোমন, আওয়ামীলীগ নেতা হানিফ মাহমুদ, ১৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ হানিফ মিয়া, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোস্তফা কামাল, ওয়ার্ড বিএনপি নেতা মোঃ জহিরুল ইসলামসহ অনেকে।

নিহত সোহেলের অসমাপ্ত কাজ করাসহ একটি আধুনিক ওয়ার্ড কাজ করতে প্রতিশ্রুতি নিয়ে মাঠে রয়েছেন তারা। এ বিষয়ে নিহত কাউন্সিলর সোহেলের স্ত্রী শাহনাজ আক্তার রোনা বলেন, একটি অবহেলিত ও অনুন্নত ওয়ার্ডে ব্যপক উন্নয়ন কাজ করেছে আমার স্বামী। আমি আমার স্বামীর অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করে একটি মডেল ওয়ার্ড করতে চাই। ওয়ার্ডের উন্নয়ন বজায় রাখতে ওয়ার্ডবাসী আমাকে কাউন্সিলর হিসেবে চাচ্ছে।

জাপান শাখা আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ হানিফ মাহমুদ বলেন, আমার বাবা মরহুম ইদ্রিস মিয়া এ ওয়ার্ডে চারবার কমিশনার ছিলেন। তিনি অবহেলিত এ অঞ্চলের শিক্ষার আলো ছড়াতে, সন্ত্রাস মাদক মুক্ত এলাকা গড়ার জন্য কাজ করে গেছেন। আমি আমার বাবার স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করতে চাই। সকলকে একটি সামাজিক বন্ধনে আবদ্ধ করে সুন্দর ওয়ার্ড গড়তে চাই।

১৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ হানিফ মিয়া বলেন, শুরুতেই এ ওয়ার্ডে আমার নির্বাচন করার কথা ছিলো। কাউন্সিলর সোহেলকে সমর্থন দিয়ে আমি তখন করিনি। যেহেতু পদটি শূন্য হয়েছে তাই আমি নিবাচন করতে চাই। আমি দীর্ঘকাল সাংগঠনিক ও সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে জরিত থেকে মানুষের কল্যানে কাজ করে যাচ্ছি। আমার দীর্ঘকালের অভিজ্ঞতার আলোকে ওয়ার্ডবাসীর সেবা করতে চাই।

১৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোস্তফা কামাল বলেন, আমার পূর্ব পুরুষেরা জনগনের সেবা করে গেছে। আমার পরিবার থেকে জনপ্রতিনিধিও ছিলো। এর ধারাবাহিকতায় আমিও মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। ওয়ার্ডবাসীর আমাকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে দেখতে চায়। আমি নির্বাচিত হলে কাউন্সিলর সোহেল এর উন্নয়নের কাজকে আরা গতিশীল করে তুলবো।

নিহত কাউন্সিলর সোহেলের ছোট ভাই ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা সৈয়দ রোমন বলেন, আমি সব সময় ভাইয়ের সাথে থেকে ওয়াডবাসীর সেবা করেছি। ভাইয়ের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের তদারকি করেছি। ওয়ার্ডবাসীর দ্বারে দ্বারে গিয়েছি। ভাইয়ের উন্নয়ন কাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা ও ওয়াডবাসীর চাওয়ার প্রেক্ষিতে আমি এ ওয়ার্ডে নির্বাচন করতে চাই।

ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি মোঃ জহিরুল ইসলাম বলেন, মাদক ও সন্ত্রাসের প্রতিবাদ করতে গিয়ে খুন হন কাউন্সিলর সোহেল। আমি ওয়ার্ডের সকলকে সাথে নিয়ে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত সুন্দর পরিচ্ছন ওয়ার্ড করতে কাজ করতে চাই। ওয়ার্ডবাসীও একজন সিনিয়র হিসেবে আমাকে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দিচ্ছে।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. সফিকুল ইসলাম বলেন, কাউন্সিলর সোহেলের মৃত্যুজনিত কারনে এ পদটি শূন্য ঘোষনা করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর নেহার বেগমকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সিটি কর্পোরেশনের নিবার্চনের সময় যেহেতু হয়েছে তাই এ ওয়ার্ডে আর উপ-নির্বাচন হচ্ছেনা। মূল নির্বাচনই হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি