সোমবার,২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


নির্বাচনের মাঠে কি থাকবেন সাক্কু ?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৪.০৫.২০২২

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

আসন্ন কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে আরফানুল হক রিফাতকে নৌকার মাঝি হিসেবে মনোনীত করার পরই মহানগরজুড়ে মেয়র সাক্কুকে নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। মেয়র মনিরুল হক সাক্কু কি রাজনৈতিক চাপে পড়ে কিংবা অতীতের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নির্বাচন থেকে সরে আসবেন নাকি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন? এমন প্রশ্ন এখন কুমিল্লাজুড়ে ।

স্থানীয় একাধিক সূত্রমতে, আনজুম সুলতানা সীমা, নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম, মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, কবিরুল ইসলাম শিকদার কিংবা আনিসুর রহমান মিঠু আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন পেলে মনিরুল হক সাক্কু নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে সেটা সবারই জানা ছিল। বিএনপি নির্বাচনে না আসলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তাঁর নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা নিশ্চিত ছিল। কিন্তু সদর সাংসদ হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের স্নেহভাজন লোক আরফানুল হক রিফাত মনোনয়ন পেলে সাক্কু নির্বাচন করবে না- এটা প্রায় আগে থেকে বিভিন্ন মহলে আলোচনা হয়েছে। এমনকি মিডিয়াতেও এসেছিল।

অনেকের মতে, বিগত দুটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র সাক্কুর বিজয়ের পেছনে এমপি বাহারের গ্রুপের সহযোগিতা ছিল। এমনকি বিগত সাংসদ নির্বাচনেও এমপি বাহারের পক্ষে মেয়র সাক্কুর নেতাকর্মীরা কাজ করেছে বলে জানা যায়। সে হিসেবে মেয়র সাক্কু অতীতে বেশ কয়েক বার বলেছিল এমপি বাহারের পচ্ছন্দমত প্রার্থী আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন পেলে তিনি নির্বাচন থেকে সরে আসবেন। এবার কুসিক নির্বাচনে এমপি বাহারের প্রার্থী রিফাতের উপর আস্থা রেখেছে দলীয় হাইকমান্ড। এখন প্রশ্ন এসেছে সাক্কু কি অতীত প্রতিশ্রুতি রক্ষা করবেন নাকি প্রতিশ্রুতি থেকে সরে আসবেন। এটাই এখন টক অব দ্য টাউনে পরিণত হয়েছে।

আরফানুল হক রিফাত দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর থেকে এমপি বাহার সমর্থিত নেতাকর্মীরা আনন্দে ভাসছে। তাদের অনেকের মতে রিফাত মেয়র হয়ে গেছেন।এখন শুধু আনুষ্ঠানিকতা বাকি। কারণ সাক্কু প্রতিশ্রুতি কিংবা রাজনৈতিক চাপে পড়ে নির্বাচন থেকে সরে যাবেন। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রিফাত নগর পিতা হবেন। এর প্রভাব পড়েছে কাউন্সিলর প্রার্থীদের উপরও। অনেকেই নির্বাচন থেকে রহস্যজনক কিংবা বিভিন্ন সমস্যার ভয়ে সরে দাড়াচ্ছেন বলে জানা যায়।

এখন প্রশ্ন রিফাত কি তাহলে বিনাভোটেই মেয়র হচ্ছেন ? এর উত্তর জানার জন্য আরো হয়তো দুয়েকদিন অপেক্ষা করতে হবে। তবে ইতিমধ্যে বিভিন্ন মিডিয়াতে সাক্কুর অনড় অবস্থান লক্ষ্য করা গেছে। তিনি যতই চাপ আসুক কিংবা সমস্যায় পড়েন না কেন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন বলে নেতাকর্মীদের স্পষ্ট করেছেন।

এদিকে মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন ফরম তুলেছেন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার। ফলে বিনাভোটে মেয়র হয়তো রিফাত নাও হতে পারে। মেয়র পদে দ্বিমুখী কিংবা ত্রিমুখী লড়াই হতে পারে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, আজ বা আগামীকালের মধ্যে সরাসরি কিংবা অন্য মাধ্যমে সাক্কুর সাথে কুমিল্লার আ’লীগের এক প্রভাবশালী নেতার হয়তো আলোচনাও হতে পারে। সে আলোচনার পরই হয়তো বোঝা যাবে সাক্কু তার অবস্থানে কতক্ষণ অনড় থাকতে পারেন নাকি নির্বাচন থেকে সরে দাড়াবেন।

সাক্কু সমর্থিত গ্রুপের এক ছাত্রদল নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মামলা-হামলা কিংবা কোন রাজনৈতিক চাপে পড়ে সাক্কু নির্বাচন থেকে সরবেন না। তিনি নির্বাচন করবেন। তিনি কোন অতীত প্রতিশ্রুতি কাউকে দেন নি। বিএনপি সরাসরি নির্বাচন না করলেও বিএনপির ভোটেই সাক্কু তৃতীয়বারের মত মেয়র হবেন। কুমিল্লা নগরবাসির দাবির প্রেক্ষিতে তিনি নির্বাচন করছেন।

এদিকে বিএনপির অপর গ্রুপের এক যুবদল নেতা জানান, সাক্কু বিএনপির রাজনীতিতে নিস্ত্রিয়। সরকারি দলের স্থানীয় প্রভাবশালী এক নেতার সঙ্গে সাক্কুর দারুণ সখ্যতা। বিগত দুটি সিটি নির্বাচনে ওই নেতার সহযোগিতায় মেয়র পদে জয়লাভ করেছেন । মেয়র হওয়ার পর থেকে দলীয় কর্মকাণ্ডে সাক্কু নিষ্ক্রিয় ছিলেন। মেয়র হিসাবে শপথ নেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পা ছুয়ে সালাম করেছেন ।

 

এ নিয়ে ওই সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ দলীয় ফোরামে ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে। নেতাকর্মীদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই এবং দলীয় কর্মকাণ্ডে অংশ নেন না এমন অভিযোগে ইতোমধ্যে সাক্কুর কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য পদ কেড়ে নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।শেষ পর্যন্ত সাক্কু নির্বাচন থেকে সরে দাড়াবেন। কারণ নৌকার প্রার্থী রিফাত ও মেয়র সাক্কু আওয়ামী লীগের স্থানীয় প্রভাবশালী এক নেতার আস্থাভাজন। তাই রিফাত মনোনয়ন পাওয়ায় ওই নেতার নির্দেশেই ভোট থেকে সরে দাঁড়াতে পারেন সাক্কু। শেষ পর্যন্ত যদিও নির্বাচন করেন তা হবে অনেকটা লোক দেখানো , নিয়ম রক্ষার নির্বাচন।

মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেন, কোন চাপ বা সমস্যায় পড়ে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাড়াবো না। আমার বিপক্ষে কে নির্বাচন করল সেটা আমার দেখার বিষয় নয়। আমি নির্বাচন করবো নিশ্চিত থাকেন। কুমিল্লা মহানগরের মানুষের ও আমার কর্মী-সমর্থকদের দাবির প্রেক্ষিতেই আমি ভোটে অংশগ্রহণ করছি । জনগণ আমার বিগত দিনের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বিবেচনা করে আমাকে তৃতীয়বারের মত নগরপিতা হিসাবে নির্বাচিত করবে বলে আমি আশাবাদী।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী নিজামুদ্দিন কায়সার বলেন, একটি নতুন কুমিল্লা গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি। আমি কোন চাপ-মামলার হুমকিকে ভয় পাই না। আমি ইনশাল্লাহ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। বিএনপি এ নির্বাচন বর্জন করেছে। বিএনপির এ সিদ্ধান্তকে আমি নীতিগতভাবে সমর্থন করি । কিন্তু কুমিল্লার মানুষের স্বার্থে একটি পরিবর্তন দরকার। একটি ইতিবাচক পরিবর্তনের সংকল্প নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। বিগত নির্বাচনে ধানের শীষ নিয়ে সাক্কু বিজয়ী হয়ে সরকারি দলের নেতার সঙ্গে আঁতাত করে বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মীকে মামলা-হামলা এবং হয়রানি করেছে। ইভিএম একটি কারচুপির যন্ত্র। যদি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়, আমার বিশ্বাস বিএনপির ভোটব্যাংকের সমর্থন নিয়ে আমি বিজয়ী হব ইনশাল্লাহ। তবে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন কতটুকু হয়, সে বিষয়ে আমরা সন্দিহান।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি