সোমবার,২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » কুমিল্লা নিউজ » চান্দিনায় নৌকার সমর্থকদের উপর নিযার্তন বাড়ছে, রেদোয়ানের বিরুদ্ধে মামলায় আসামি আ’লীগ নেতা !


চান্দিনায় নৌকার সমর্থকদের উপর নিযার্তন বাড়ছে, রেদোয়ানের বিরুদ্ধে মামলায় আসামি আ’লীগ নেতা !


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.০৫.২০২২

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার চান্দিনায় আ’লীগ কর্মীর উপর গুলিবর্ষনের ঘটনায় এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদসহ ১৯ জন এলডিপির নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কাজী আখলাকুর রহমান জুয়েল। এই মামলায় ১৩ নং আসামি করা হয়েছে মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আ: মালেককে (মালু)। এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে চান্দিনা আ’লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, ৯ মে দুপুর আড়াইটায় চান্দিনা উপজেলা সদরের রেদোয়ান আহমেদ কলেজ ক্যাম্পাস-২ মমতাজ আহমেদ ভবনের মিলনায়তনে এলডিপি’র ঈদ পুনর্মিলনী ও ছাত্রলীগ-স্বেচ্ছাসেবকলীগের যৌথ কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ওই দিন চান্দিনায় লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ এর গাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। পরে ড. রেদোয়ান এর গুলিতে ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকবলীগ এর দুই কর্মী গুলিবিদ্ধ হয়। এ ঘটনার পর ড. রেদোয়ান আহমেদকে আটক করা হয়। পরে মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলায় ইউনিয়ন আ’লীগ নেতাকে আসামি করায় ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন তৃণমূল নেতৃবৃন্দ। কারণ সংঘর্ষ হয়েছে এলডিপির সাথে ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের। সেখানে ইউনিয়ন আ’লীগের নেতাকে আসামি করা পূর্বপরিকল্পিত ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে একাধিক নেতাকর্মী জানান।

এ বিষয়ে মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী মো: জামাল উদ্দিন আজকের কুমিল্লাকে জানান, আমি ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলাম। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আ: মালেক (মালু) নৌকার পক্ষে কাজ করেছেন। এটাই তাঁর অপরাধ। ওই দিন ওই সংঘর্ষে মালু সাহেব ছিলেন না। প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য তাকে আসামি করা হয়েছে। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সেলিম প্রধান (স্থানীয় সাংসদ ডা. প্রাণ গোপাল সমর্থিত গ্রুপের) বিজয়ী হওয়ার পর নেতাকর্মীদের উপর অত্যাচার বেড়েই চলেছে। নৌকার পক্ষে কাজ করা প্রায় ৫০ জন নেতাকর্মী এখন ভয়ে আতংকে এলাকাছাড়া। প্রায় ৪০ জন নেতাকর্মী চাঁদা দিয়ে এলাকায় কোনরকমে বসবাস করছে। নৌকা প্রতিকের পক্ষে কাজ করা অনেক কর্মীর মোটরসাইকেল তারা নিয়ে গেছে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমার পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করায় বিক্ষুদ্ধ আনারস মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী সেলিম প্রধানের কর্মী বাহিনীর দেশিয় অস্ত্রের আঘাতে ১১ মে গুরুতর আহত হয়ে কুমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের সহ সভাপতি ইমাম হোসেন ফরিদ । নৌকার পক্ষে যারাই কাজ করছেন তারাই নির্যাতিত হচ্ছেন। আমি এমপি মহোদয় ও থানা পুলিশকে একাধিকবার অবহিত করার পরও কোন নির্যাতন থামছে না।

এ বিষয়ে জানতে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সেলিম প্রধানের মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোন সংযোগে তাকে পাওয়া যায়নি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি