শনিবার,২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » ধর্মীয় » রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আজহা, যে নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়


রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আজহা, যে নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৯.০৭.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

নতুন করে করোনা মহামারীর প্রকোপ বাড়ার শঙ্কা মাথায় নিয়েই আগামীকাল রবিবার উদযাপিত হতে যাচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। গত মে মাসে ঈদুল ফিতরের সময় করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকায় যে স্বস্তিতে সবাই ঈদ উদযাপন করেছে, এবার তাতে কিছুটা ছেদ পড়ছে। এ অবস্থায় আবার ঈদের নামাজ আদায়ে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। মাস্ক পরিধানসহ এক কাতার ফাঁকা রেখে নামাজে দাঁড়াতে নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

করোনার মহামারীর আশঙ্কার পাশাপাশি এবার যোগ হয়েছে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের একটি বিস্তীর্ণ এলাকা দুদফা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের দুর্ভোগ। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার প্রতিটি ঘরে ঘরে এবার ঈদ উৎসবে ভাটা পড়বে। পাশাপাশি ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার ছাপ পড়তে শুরু করেছে সবখানেই। সব মিলিয়ে এবার ঈদুল আজহার উৎসবের জৌলুস কিছুটা হলেও কমবে বলে ধারণা সবার মাঝে।
মহান আল্লাহর নির্দেশে স্বীয় পুত্র হযরত ইসমাইলকে (আ) কোরবানি করতে উদ্যত হয়ে হযরত ইব্রাহিম (আ) আল্লাহর প্রতি অগাধ ভালোবাসা, অবিচল আনুগত্য ও অসীম আত্মত্যাগের যে সুমহান দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা ইতিহাসে অতুলনীয়। কোরবানি আমাদের মাঝে আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সঞ্চারিত করে, আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীর সঙ্গে সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে নেওয়ার মনোভাব ও সহিষ্ণুতার শিক্ষা দেয়।
প্রায় চার হাজার বছর আগে আল্লাহপাকের সন্তুষ্টি লাভের জন্য হজরত ইব্রাহিম (আ) নিজ পুত্র হযরত ইসমাইলকে (আ) কোরবানি করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু পরম করুণাময়ের অপার কুদরতে হযরত ইসমাইল (আ)-এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। হযরত ইব্রাহিম (আ)-এর ত্যাগের মহিমার কথা স্মরণ করে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সম্প্রদায় জিলহজ মাসের ১০ তারিখে আল্লাহপাকের অনুগ্রহ লাভের আশায় পশু কোরবানি করে থাকে।

আর্থিকভাবে সামর্থ্যবান মুসলিমের জন্য আল্লাহ কোরবানি ফরজ করে দিয়েছেন। এজন্য ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে কোরবানি করাই এ দিনের উত্তম ইবাদত। সেই ত্যাগ ও আনুগত্যের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সারাদেশের মুসলিম সম্প্রদায় রবিবার দিনের শুরুতেই মসজিদে সমবেত হবেন এবং ঈদুল আজহার দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করবেন। নামাজের খুতবায় খতিব তুলে ধরবেন কোরবানির তাৎপর্য। তবে এবার করোনার পাশাপাশি দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে ভিন্ন পরিবেশে কোরবানির ঈদ হওয়ায় অন্যান্য বারের চেয়ে পশু কোরবানি কিছুটা কম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নামাজ শেষে মুসল্লিদের অনেকেই যাবেন কবরস্থানে। চিরবিদায় নেওয়া স্বজনদের কবরের পাশে দাঁড়িয়ে সজল চোখে এই আনন্দের দিনে তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে আল্লাহর দরবারে আকুতি জানাবেন।

জিলহজ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আজহা উদযাপিত হলেও পরের দুই দিনও পশু কোরবানি করার বিধান রয়েছে। সামর্থ্যবান মুসলমানদের জন্য কোরবানি ফরজ হলেও ঈদের আনন্দ থেকে দরিদ্র-দুস্থরাও বঞ্চিত হবেন না। কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রির সমুদয় অর্থ এবং কোরবানি দেওয়া পশুর মাংসের তিন ভাগের এক ভাগ তাদের মধ্যে বণ্টন করে দেওয়া হবে।

 



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি