শনিবার,২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


পরপর ৪ কন্যাসন্তান, স্বামীর নির্যাতনে অতিষ্ঠ গৃহবধূর আত্মহত্যা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.০৯.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

ছেলে সন্তানের আশায় পরপর চারটি কন্যাসন্তানের জন্ম। সেই দায় চাপানো হয়েছে শিপা বেগমের (২৯) ওপর। এ নিয়ে অসহ্য হয়ে উঠেছিল দাম্পত্যজীবন। স্বামীর নির্যাতন বাড়ছিল দিন দিন। অবশেষে বিষপানে আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন তিনি। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের বড়কাপন গ্রামে গতকাল শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

শিপা বেগম ওই গ্রামের সুমন মিয়ার স্ত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ১০ বছর আগে জগন্নাথপুর পৌরসভার ইকড়ছই এলাকার মকদ্দুছ মিয়ার মেয়ে শিপার সঙ্গে বড়কাপন গ্রামের আব্দুল হামিদ মিয়ার ছেলে সুমনের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। দাম্পত্যজীবন সুখেরই ছিল। বিয়ের প্রথম বছরেই তাদের প্রথম কন্যাসন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু দ্বিতীয়বারও কন্যাসন্তানের জন্ম হওয়ার পর সুখের সংসারে আগুন লাগে। একটি ছেলের আশায় আরও দুটি সন্তান নেন তারা। কিন্তু সে দুটিও কন্যা। একে একে চার কন্যাসন্তানের জন্ম হওয়ায় স্ত্রীর ওপর ক্ষিপ্ত হন সুমন। প্রায়ই স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন করতেন।

এ পরিস্থিতিতে জামাইকে সন্তুষ্ট রাখতে বছরখানেক আগে শিপার মা মনু বেগম তার সৌদিপ্রবাসী মেয়ের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা ধার করে সুমনকে দেন। মাসখানেক আগে সেই টাকা ফেরত চাইলে সুমন মিয়া আরও আগ্রাসী হয়ে ওঠেন। নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে গেলে গতকাল বিকেলে শিপা বিষপান করেন। পরিবারের লোকজন তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শিপার মা মনু বেগম বলেন, ‘কন্যাসন্তান জন্ম দেওয়া ছিল আমার মেয়ের অপরাধ। ছেলেসন্তান হয় না বলে প্রায়ই আমার মেয়েকে নির্যাতন করত তার স্বামী। মেয়ের সুখের জন্য জামাইকে ব্যবসার কাজে ২ লাখ টাকা ধার দেই। আর সেই টাকা চাওয়াতে আমার মেয়েকে নির্যাতন করত শ্বশুরবাড়ির লোকজন। তার মৃত্যুর জন্য তারাই দায়ী। আমি তাদের বিচার চাই।’

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘শিপা বেগমের মরদেহ সিলেট হাসপাতালে রয়েছে। সেখানে ময়নাতদন্ত করা হবে। অভিযোগের ভিত্তিতে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি