শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বাবার নাম পরিবর্তন করে মৃত মুক্তিযোদ্ধার নামে ভাতা উত্তোলন!


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৮.১১.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

বীরমুক্তিযোদ্ধা তোতা মিয়া ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। তিনি শিবপুরের মাছিমপুর ইউনিয়নের দত্তেরগাঁও মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল গফুর ভূঁইয়ার ছেলে। ব্যক্তি জীবনে অবিবাহিত ও তার অন্য কোনো ওয়ারিশ না থাকায় তার প্রাপ্য সম্মানী ভাতা সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। জীবদ্দশায় তিনি মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা গ্রহণ করতেন।

অভিযোগে জানা গেছে, মাছিমপুর ইউনিয়নের দত্তেরগাঁও মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত বীরমুক্তিযোদ্ধা তোতা মিয়ার মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা উত্তোলন করছেন যোশর ইউনিয়নের চান্দেরটেক গ্রামের মৃত ডেঙ্গু মিয়ার ছেলে তোতা মিয়া। তোতা মিয়া ভারতীয় মুক্তিবার্তা নম্বর ব্যবহার করে ৩ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছেন ও মাসিক সম্মানী ভাতা উত্তোলন করছেন। এই ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রীর নিকট লিখিত অভিযোগ করেন শিবপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল মোতালিব খান ও যশোর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ফাইজুল ইসলাম।

তাদের অভিযোগ, উপজেলার যোশর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের চান্দেরটেক গ্রামের তোতা মিয়ার পিতা মৃত ডেঙ্গু মিয়াকে মৃত গফুর ভূঁঞা ওরফে (ডেঙ্গু মিয়া) উল্লেখ করে যোশর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ২০২১ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি সনদ নেন। কিন্তু তার জাতীয় পরিচয়পত্রে নাম তোতা মিয়া, বাবার নাম মৃত ডেঙ্গু মিয়া, মায়ের নাম মৃত মরিয়ম নেছা, জন্ম ২ জানুয়ারি ১৯৪৭।

যশোর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ফাইজুল ইসলাম জানান, মৃত মুক্তিযোদ্ধা তোতা মিয়া একজন ভারতীয় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বীরমুক্তিযোদ্ধা। তার ভারতীয় তালিকার সনদ নম্বর ৩৬৫৩। মৃত বীরমুক্তিযোদ্ধার সনদের একই নম্বর ব্যবহার করে মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা উত্তোলন করছেন চান্দেরটেক গ্রামের মৃত ডেঙ্গু মিয়ার ছেলে তুতা মিয়া। তিনি যোশর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সনদ নিয়ে তার পিতার নাম মৃত গফুর ভূঁঞা ওরফে ডেঙ্গু মিয়া ব্যবহার করছেন।

 

শিবপুর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আ. মোতালিব খান বলেন, যশোর ইউনিয়ন কমান্ডারের মাধ্যমে জানতে পারি মাছিমপুর ইউনিয়নের দত্তেরগাঁও মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত মুক্তিযোদ্ধা তোতা মিয়ার ভারতীয় তালিকার নম্বর ব্যবহার করে ভাতা উত্তোলন করছেন যোশর ইউনিয়নের চান্দেরটেক গ্রামের মৃত ডেঙ্গু মিয়ার ছেলে তুতা মিয়া। তদন্ত করে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার জন্য মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

এ বিষয়ে বীরমুক্তিযোদ্ধা তোতা মিয়া জানান, আমি দীর্ঘদিন প্রবাসে থাকার কারণে আমার নাম মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারিনি। আমি একজন ভারতীয় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বীরমুক্তিযোদ্ধা। একই মুক্তিবার্তা নম্বরে দুইজনের নাম থাকার বিষয়টি আমার জানা নেই।

শিবপুর সোনালী ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ মোকাব্বির হোসেন জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর সম্মানী ভাতা উত্তোলন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। একই নাম্বার দুইজনের নামে কীভাবে হয়েছে তা আমার জানা নেই।

এ বিষয়ে শিবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জিনিয়া জিন্নাত জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর সম্মানী ভাতা উত্তোলন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অভিযোগটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি