শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বাক প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ ও পুড়িয়ে হত্যা, গ্রেপ্তার ১


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৩.১২.২০২২


ডেস্ক রিপোর্ট:

কেরানীগঞ্জে নারীকে (৩৫) ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে সুজন নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার ভোরে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া তেগাছিয়া বাজার এলাকায় সুজনের শ্বশুরবাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আজ শনিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান।

গ্রেপ্তারকৃত সুজন শরীয়তপুরের গোসাইরহাট থানার উত্তর খান পাড়া গ্রামের দাদন মিয়ার ছেলে। তিনি কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন কলাতিয়া এলাকায় ভুক্তভোগী ওই নারীর বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি বালুর ভিটিতে গাড়ি চালকের কাজ করতেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, গত সোমবার রাত সাড়ে দশটার দিকে জরুরী সেবা ট্রিপল নাইনে ফোন পেয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় ভুক্তভোগী নারীকে উদ্ধার করে প্রথমে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ পরে শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইনস্টিটিউটে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে জানা যায়, ওই নারী বাক প্রতিবন্ধী এবং তিনি ইশারা ইঙ্গিতে কিছু বলতে চান। এ সময় তাৎক্ষণিক একজন সাইন ল্যাংগুয়েজ এক্সপার্ট ব্যবহার করে তার জবানবন্দী গ্রহণ করা হয়। এরপর ফিঙ্গারপ্রিন্ট সংগ্রহ করে তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর পরিবারের লোকদের খবর দেওয়া হয়।

এ সময় জানা যায়, সুজন ও ভুক্তভোগীর মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক হয়। ওই নারী বিয়ে না করলে ঘটনা ফাঁস করে দেওয়ার কথা জানালে হত্যার পরিকল্পনা করেন সুজন। পরিকল্পনা অনুযায়ী রাতে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন শুভাঢ্যা সাবান ফ্যাক্টরি এলাকায় ভুক্তভোগীকে নিয়ে প্রথমে মাথায় আঘাত করেন। পরে মৃত ভেবে পরিধেয় জামা কাপড়ে আগুন লাগিয়ে দেন সুজন। যাতে পরবর্তীতে ওই নারীকে কেউ চিনতে না পারে। এরপর পালিয়ে যান সুজন।

গত মঙ্গলবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভুক্তভোগী ওই নারী মারা যান। পরে তার বড় ভাই বাদী হয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান পরিচালনা করে। এরপর গতকাল রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আমিনুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) মোবাশ্বেরা হাবিব খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কেরানীগঞ্জ সার্কেল শাহাবুদ্দিন কবিরসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি