সোমবার,৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


গুলশানে গুলি: স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৬.০১.২০২৩

ডেস্ক রিপোর্ট:

সোমবার (১৬ জানুয়ারি) সকালে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. আ. আহাদ সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বাকি চারজন হলেন আরিফ হোসেন, মনির আহমেদ, শরিফুল ও হুমায়ুন। এর মধ্যে ঘটনার দিন মো. আব্দুল ওয়াহিদ মিন্টু, আরিফ হোসেন ও মনির আহমেদ গ্রেফতার হন। আর শরিফুল ও হুমায়ুন ঘটনার পর থেকে পলাতক।

ডিসি মো. আ. আহাদ বলেন, গুলিবিদ্ধ পথচারী আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। গ্রেফতার তিনজনকে আদালতে পাঠানো হবে। বাকি দুজনকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

এর আগে রোববার (১৫ জানুয়ারি) বিকেলে গ্লোরিয়া জিন্স রেস্টুরেন্টের সামনে গুলির ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন: দুই কেজি সোনাসহ শাহজালালে আটক ২

ঘটনার কারণ বর্ণনা করে ডিসি আহাদ বলেন, বিকেল ৪টার দিকে আরিফ নামের এক যুবক গুলশান ডিএনসিসি মার্কেটের হাবিবের বিকাশের দোকানে যান। সেখানে গিয়ে আরিফ বেশ কয়েকটি নম্বরে মোট ৭৫ হাজার টাকা পাঠানোর কথা বলেন। আরিফের কথা অনুযায়ী, হাবিব নির্দিষ্ট নম্বরগুলোতে ৭৫ হাজার টাকা পাঠান। টাকা পাঠানোর পর আরিফের কাছে সেই টাকা চাওয়া হলে তিনি টাকা না দিয়ে হাবিবের সঙ্গে টালবাহানা শুরু করেন।

ডিএমপির এ কর্মকর্তা বলেন, আরিফ টাকা না দেয়ায় আশপাশের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নিয়ে হাবিব তাকে আটক করে। আটক অবস্থায় সে তার সহযোগীদের বিষয়টি জানান। এরপর আরিফের ফোন পেয়ে তার পাঁচ সহযোগী টিপু, হুমায়ুন, অহিদুল ইসলাম মিন্টু ও শরিফ ঘটনাস্থলে আসেন।

তিনি আরও বলেন, ঘটনাস্থলে আসার পর বিভিন্নভাবে আরিফকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন তার সহযোগীরা। কিন্তু টাকা পরিশোধ না করায় তাকে ছাড়তে চাননি হাবিব। এতে ঘটনাস্থলে আতঙ্ক সৃষ্টি করে আরিফকে নিয়ে যাওয়ার জন্য অহিদুল ইসলাম মিন্টু ফাঁকা গুলি ছোড়েন। এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা পথচারী আমিনুল গুলিবিদ্ধ হন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি