সোমবার,৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


কুবির ১৭ জন শিক্ষককে ভাইস চ্যান্সেলর অ্যাওয়ার্ড প্রদান


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২০.০১.২০২৩

কুবি প্রতিনিধি:

গবেষণা-নৈপুণ্যের সম্মানস্বরূপ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) ১৭ জন শিক্ষককে ভাইস-চ্যান্সেলর অ্যাওয়ার্ড প্রদান ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) বিকাল ৫ টায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের ৪১১ নং কক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন-এর সভাপতিত্বে নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক অমিত দত্ত ও ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শারমিন সুলতানা’র সঞ্চালনায় এই অ্যাওয়ার্ড প্রদান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত শিক্ষকদের হাতে সম্মানী এবং সনদ তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধাণ অতিথি শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি।

অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত একাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ বেলাল উদ্দিন বলেন, গবেষণা কাজের জন্য এরকম একটি অ্যাওয়ার্ড অবশ্যই আমাকে আনন্দিত করেছে এবং সামনে আরও কাজ করার জন্য অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমার সাথে আমার অন্যান্য যে সহকর্মীরা অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত হয়েছেন তাদেরকেও অভিনন্দন। বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা এরকম একটি উদ্যোগ নেওয়ার জন্য। আশা করি সামনেও এরকম উদ্যোগ গুলো চলমান থাকবে সেই সাথে আমরা যারা গবেষণার কাজে যুক্ত আছি তারাও আরও ভালো ভালো কাজ বিশ্ববিদ্যালয়কে উপহার দিতে পারবো।

সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন বলেন, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আজকের দিনটি অত্যন্ত আনন্দের দিন কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে অবদান রেখেছে এমন শিক্ষকদের জন্য আজকে দীপু মনি উপস্থিত হয়েছেন প্রথমবারের মত। তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোকে গুণগত মান সম্পন্ন করার জন্য অ্যাকাডেমিক প্ল্যানে দৃষ্টিপাত করছেন। আজকে যেমন তাকে আমরা আমাদের পাশে পেয়েছি সামনেও পাবো বলে আশা করি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি (এমপি) অনুষ্ঠানে আসতে পারার আনন্দ প্রকাশ করে বলেন, কুমিল্লা অত্যন্ত ঐতিহ্যবাহী একটি অঞ্চল, কুমিল্লা অনেক প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শন এবং জ্ঞানীদের জন্য ঐতিহ্য মন্ডিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল কাজ জ্ঞান সৃষ্টি ও চর্চার ফল। এই অ্যাওয়ার্ড এই উদ্যোগের জন্য মাননীয় উপাচার্য কে ধন্যবাদ। আশা করি সামনেও এটি বলবৎ থাকবে। গুচ্ছ পরীক্ষার প্রাপ্ত অর্থ শিক্ষার্থীদের স্কলারশীপ দেয়ার মত একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করার জন্য আবারও ধন্যবাদ।

তিনি আরও বলেন, আমরা চাই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রকৃত জ্ঞান সৃষ্টি এবং চর্চার জায়গা হয়ে উঠুক। আমরা দেশ গড়ার স্লোগান শুনতে চাই, অমুক ভাই এর জন্য ধন্য- এসব না।

শিক্ষার্থীদের স্মার্ট নাগরিক হওয়ার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, লাইব্রেরী যেন শুধু বিসিএস পরীক্ষা প্রস্তুতি কেন্দ্র না হয়। যে যত ভালো অবস্থানেই যান একজন ভালো মানুষ হতে হবে, শত ত্যাগে পাওয়া এই মাতৃভূমিকে হৃদয়ে ধারণ করতে হবে, স্মার্ট নাগরিক হতে হবে। আপনারা শুধু প্রযুক্তি বিজ্ঞান ব্যবহার করবেন না এর উদ্ভাবক হবেন। যে যে বিষয়ে পড়েন না কেন সকলকে ভাষা জ্ঞান, প্রযুক্তি জ্ঞান অবশ্যই থাকতে হবে। নীতি নির্ধারক এবং শিক্ষকরা এ বিষয়ে কাজ করবেন। শুধু সনদ না দক্ষতা তৈরি করতে কাজ করবেন।

অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মোঃ আসাদুজ্জামান।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিভাগীয় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, শাখা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ এবং প্রশাসনিক কমকর্তা কমচারীরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি