মঙ্গলবার,২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


কুমিল্লা সেনানিবাসে কর্মরত সেনাসদস্য ট্রাক চাপায় নিহতের ঘটনায় চালক গ্রেফতার


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৫.০২.২০২৩

স্টাফ রিপোর্টার:

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ট্রাক চাপায় কুমিল্লা সেনানিবাসে কর্মরত সেনাসদস্য নিহতের ঘটনায় লাইসেন্স বিহীন চালক আবুল কালামকে(৬২) কুমিল্লার দাউদকান্দি থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১,সিপিসি-২ সদস্যরা। এ সময় ট্রাকটি জব্দ করা হয়।

শুক্রবার (২৪ ফেব্রুয়ারী) রাতে দাউদকান্দি উপজেলার গৌরিপুর এলাকা হতে ঘাতক ট্রাকচালক আবুল কালামকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া আবুল কালাম দাউদকান্দি উপজেলার স্বল্প পেন্নাই গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।

২১ ফেব্রুয়ারী মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বালুয়াকান্দি এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই মারা যায় মোটরসাইকেল চালক তুষার। আহত হন মোটরসাইকেলের পিছনের সীটে বসে থাকা আরোহী রিয়াজ (২৭) নামে এক ব্যক্তি। সম্পর্কে তিনি নিহত তুষার এর দুলাভাই। পরবর্তীতে ঘাতক ট্রাকচালক ট্রাক নিয়ে দ্রুত ঐ স্থান থেকে পালিয়ে যায়।

দূর্ঘটনায় নিহত মোটরসাইকেল চালক মেহেদী হাসান তুষার (২৫) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন সদস্য। তিনি চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানার নয়াকান্দি গ্রামের জসিম উদ্দিন এর ছেলে। তার পিতা জসিম উদ্দিনও একজন অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য।

মেহেদী হাসান তুষার ২০১৮ সালের ১৪ জানুয়ারি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করে ৫ বছর ১ মাস চাকুরী সম্পন্ন করে এবং ২০২২ সালের ১৭ জুন বিবাহ করে। সর্বশেষ সে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট এ কর্মরত ছিল। ঘটনার দিন গত ২১ ফেব্রুয়ারী নিহত তুষার তার দুলাভাইকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে গাজীপুর থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা করেছিলেন। পথিমধ্যে সন্ধ্যার দিকে তারা মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি এলাকায় পৌছালে পেছন দিক আসা একটি ট্রাক তাদের মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। এ ঘটনায় হেলমেট পরিহিত অবস্থায় থাকা সত্ত্বেও মোটরসাইকেল চালক তুষার ঘটনাস্থলেই মারা যায় ও তার সাথে থাকা আরোহী রিয়াজ গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়। আহত রিয়াজকে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় ।

উক্ত দূর্ঘটনায় নিহত মোটরসাইকেল চালক তুষারের বাবা বাদী হয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি গজারিয়া থানায় সড়ক পরিবহন আইনে অজ্ঞাতনামা চালক ও অজ্ঞাতনামা গাড়ির বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ এর বেশ কয়েকটি গোয়েন্দা টিম মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করে। গোয়েন্দা টিম হতে প্রাপ্ত তথ্য ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ঘটনাস্থলের আগে ও পরে একাধিক সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে ঘাতক ট্রাকচালককে শনাক্ত করা হয়। ২৪ ফেব্রুয়ারী রাতে ঘাতক ট্রাকচালক আবুল কালামকে গ্রেফতার করা হয়।

ঘাতক ট্রাকচালককে ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে তার ড্রাইভিং লাইসেন্সটি হারিয়ে গিয়েছে মর্মে তথ্য প্রদান করেন। এছাড়াও তিনি আরো উল্লেখ করেন, ১৯৮২ সালে সে নিজের নামে একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরী করে। ১৯৯৪ সালে তার লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও অদ্যাবধি সে লাইসেন্সের মেয়াদ নবায়ন করেন নাই। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে সে নিজে একটি ট্রাক ক্রয় করে এবং ২০২০ সাল থেকে পেশাদারভাবে হেল্পার ব্যতীত নিজেই ট্রাকটি চালনা করছিল।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে গজারিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ এর কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি