শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বিশ্বের ১২ রহস্যময় পরিত্যক্ত স্থান


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১২.১১.২০১৫

Locuri_misterioase_bg_117333134 HfBG_781383551

ফিচার ডেস্ক||

বিশ্বের কিছু পরিত্যক্ত নির্জন স্থান নিয়ে ফিচারের দুই পর্বের বিশেষ আয়োজন। এর প্রতিটিই একসময় ছিলো জনবহুল আর কর্মমুখর জায়গা। মনুমেন্টগুলোতে জমা ধুলো, মরিচা ও ফাটলের গায়ে লেগে রয়েছে আদি-মানুষের জীবনযাত্রার গন্ধ। একসময় যারা সেখানে বসবাস করতো, কাজ করতো ও ব্যবহার করতো। ঘুরে আসা য‍াক সেসব স্থান থেকে-


কলমানস্কোপ, নামিবিয়া
কলমানস্কোপ নামিবিয়ার একটি ছোট উপনিবেশ। উনিশ শতকের শুরুর দিকে জার্মান ঔপনিবেশিকরা স্থানটিতে হীরার সমৃদ্ধতার খোঁজ পায়। ওই সময় এলাকাটির খুব তর্জন-গর্জন চলছিলো। কিন্তু প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর হীরার সম্পদের জোয়ারে ভাটা পড়ে যায়। হ্রাস পেতে শুরু করে হীরার খনি। ১৯৫০ সালের মধ্যেই শহরটি পুরোপুরি মরুভূমিতে পরিণত হয়। জনহীন এ স্থানে এখন আসেন কেবল আলোকচিত্রী ও পর্যটকরা।


ভাসমান বন, সিডনি, অস্ট্রেলিয়া
ভাসমান এ বনটির বয়স একশো দুই বছর। এসএস অ্যারিফিল্ড জাহাজের ওপর গড়ে উঠেছে এ বন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অস্ট্রেলিয়ার হোমবুশ উপসাগরে বিশাল বাষ্পীয় এ জাহগাজটি ভেঙে যায়। জাহাজের ইয়ার্ড ভেঙে যাওয়ার জাহাজটি এভাবেই থেমে যায়। সেই থেকে অসাধারণ ও অদ্ভুত ভাসমান জাহজের এ বনটি প্রকৃতিতে টিকে থাকতে পারার স্বাভাবিক ক্ষমতার উদাহরণ হয়ে আজও একই স্থানে  দাঁড়িয়ে রয়েছে।


হল্যান্ড দ্বীপের সর্বশেষ বাড়ি, যুক্তরাষ্ট্র
বাড়িটি যুক্তরাষ্ট্রের চেসাপিক বে’র অন্তর্গত দ্বীপ কলোনির অবিচ্ছিন্ন অংশ ছিলো। মোটামুটি উন্নত ছোট দ্বীপের উপকূল দ্রুত ভাঙনের ফলে ও ভূমিক্ষয় হওয়ায় দ্বীপের একমাত্র এ বাড়িটিই টিকে ছিলো। ২০১০ সালে হল্যান্ড দ্বীপের শেষ অস্তিত্ব এ বাড়িটিও ধসে পড়ে।


দক্ষিণ-পশ্চিম ফ্লোরিডার বসতিহীন দ্বীপ, যুক্তরাষ্ট্র
১৯৮১ সালে ফ্লোরিডা উপকূলে কেপ রোমানো অন্তরীপে এ গম্বুজ দালানগুলো নির্মাণ করা হয়। এগুলো তেল প্রস্তুতকারক বব লি’র গ্রীষ্মকালীন নিবাস ছিলো। পরে এগুলো ভগ্নদশায় পরিণত হয়। এদের ভবিষ্যৎ এখনও অনিশ্চিত।


পরিত্যক্ত কারখানা, ইতালি
১৮৬৬ সালে ইতালির সোরেন্তোর এ কারখানাটি পরিত্যক্ত হয়। কারখানায় গম ভাঙানো হতো। পাশেই ছিলো করাত-কলের ব্যবস্থা। তাজ্জো স্কয়ার নির্মাণের পর কারখানাটি সমুদ্র থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।


নিমজ্জিত ইয়ট, এন্টার্কটিকা
ব্রাজিলিয়ান ইয়ট- মার সেম ফিম। এন্টার্কটিকার অ‍ার্ডলি উপসাগরে ডুবে যায় এটি। তীব্র বাতাস আর উত্তাল সমুদ্র নাবিককে জাহাজ ত্যাগ করতে বাধ্য করে। জাহাজ ডুবে গেলে এর উপর দিয়ে বহমান পানি বরফের আস্তরণে পরিণত হয়।


নিউ বেডোর্ড অরফিউম, যুক্তরাষ্ট্র
মাসাচ্যুসেটসের পুরনো ভবনটি একসময় ছিলো থিয়েটার। ১৯১২ সালে এটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত হয় ও ১৯৫৯ সালে বন্ধ হয়ে যায়। সে বছর থেকেই ভবনটি সুপারমার্কেট ও তামাক সংরক্ষণাগার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বর্তমানে অরফিউম ইনকর্পোরেটেড অলাভজক প্রতিষ্ঠান এ ভবনটিকে নতুন করে তৈরির জন্য অর্থ যোগানের চেষ্টা করছে।


শিচেং ডুবো শহর, চীন
অদ্ভুত সুন্দর ডুবো শহরটির বয়স এক হাজার তিনশো ৪১ বছর। শিচেং বা লায়ন সিটি নামে পরিচিত এ শহরটি পূর্ব চীনের ঝেঝিয়াং প্রদেশে অবস্থিত। ১৯৫৯ সালে শিনান নদী জলবিদ্যুৎ স্টেশন নির্মাণের সময় শিচেং ডুবে যায়। কিন্তু পানি শহরটিকে বাতাস ও বৃষ্টিজনিত ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা করেছে বলে শহরটি এখনও তুলনামূলক ভালো অবস্থায় রয়েছে।


সাল্টো হেটেল, কলোম্বিয়া
ডি সাল্টো হোটেল ১৯২৮ সালে কলোম্বিয়ার তেকুয়েনদিমা জলপ্রপাতের কাছে খোলা হয়। একশো ৫৭ মিটার উঁচুতে জলপ্রপাত দেখতে আসা পর্যটকদের সেবায় নিয়োজিত ছিলো এ হোটেলটি। নব্বইয়ের দশকে জলপ্রপাতটির জনপ্রিয়তা কমে যাওয়া শুরু করলে হোটেলটি বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু ২০১২ সালে স্থানটি জাদুঘরে রূপান্তর করা হয়।


হাশিমা দ্বীপ, জাপান
হাশিমা দ্বীপ ব্যাটেলশিপ দ্বীপ ও ভূতের দ্বীপ নামেও পরিচিত। ১৮ শতকের শেষ থেকে ১৯ শতকের শেষ পর্যন্ত সমুদ্রতলের কয়লা খনির জন্য জনবহুল ছিলো ভাসমান এলাকাটি। পরে জাপান ধীরে ধীরে কয়লা থেকে পেট্রোলিয়াম আরোহণের দিকে ঘুরে যাওয়ায় কয়লা খনি বন্ধ হয়ে যায় ও দ্বীপটি শূন্য ভূতুড়ে অবস্থায় পড়ে থাকে।


সানঝি, তাইওয়ান
সানঝির এলিয়েন সদৃশ বাড়িগুলো অবকাশ গন্তব্য হিসেবে পরিচিত ছিলো। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের মিলিটারির‍া ছুটিতে এশিয়া এলে এখানে থাকতেন। বিনিয়োগের অভাব ও দুঃখজনক সড়ক দুর্ঘটনা ও অন্যান্য কারণে ১৯৮০ সালের দিকে এ অবকাশ ভবন বন্ধ হয়ে যায়। ২০১০ সালে দুর্ভাগ্যবশত ভবনগুলো ভেঙে পড়ে।


পরিত্যক্ত মিলিটারি হাসপাতাল, বেলিজ, জার্মানি
জার্মানির বেলিজ-হেইলস্টেটেন হসপিটাল কমপ্লেক্সের ছবি এটি। বিশাল এ কমপ্লেক্সটি আঠারো শতকের শেষের দিকে নির্মাণ করা হয়। ১৯১৬ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে আহত হয়ে এডলফ হিটলার এ হাসপাতালে সেবা নিয়েছিলেন। ১৯৯৫ সালে রাশিয়ানরা চলে যাওয়ার পর হাসপাতালটি আরও বেশি পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি