শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » নারী ও শিশু » রানাপ্লাজা ধ্বসে এক মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় ৮ম তলা থেকে উদ্ধার হয়ে প্রান ফিরে পাওয়া নারী শ্রমিক শিরিনের ঘটে যাওয়া জীবন সংগ্রাম ভবিষ্যত


রানাপ্লাজা ধ্বসে এক মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় ৮ম তলা থেকে উদ্ধার হয়ে প্রান ফিরে পাওয়া নারী শ্রমিক শিরিনের ঘটে যাওয়া জীবন সংগ্রাম ভবিষ্যত


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৪.০৪.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকালে রানা প্লাজা ৯ ম তলা থেকে নিচ তলা পর্যন্ত বিল্ডিংটি সম্পূর্ণ ধ্বসে মাটির সাথে মিশে যায় এর মধ্য প্রান হারায় ১১৩৮ জন শ্রমিক। আহত হয় ১৫’শত শ্রমিক। এ ঘটনার ৪ বছর হতে চলছে।
তার কর্মজীবন শুরু করে রানা প্লাজার ৮ম তলা নিউ ওয়েফ ষ্টাইল লি: গার্মেন্টস কারখানার সুইং হেলাপার হিসেবে কাজ করেন ৬ মাস। এর মধ্যে ঘটে যায় এক মর্মান্তিক দূর্ঘটনা।
এ মর্মান্তিক কোন গাড়ী দূর্ঘটনা নয় এই দূর্ঘটানাটি হচ্ছে বিল্ডিং ধ্বসের ঘটনা। এ মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় প্রান হারায় হাজারের উপরে শ্রমিক আবার অনেকে বেচে যান এ দূর্ঘটানায় থেকে আহত অবস্থ্যায় প্রান ফিরে পান বহু শ্রমিক।
২৪ শে এপ্রিল তার জীবনের স্মৃতিতে জড়িয়ে রয়েছে একটি দিন। হয়তো বা অনেকেই ভুলে গেছে এই দিন। কিন্তু আজও ভুলিনি তিনি। তার কানে আজও বেজে উঠে সেই ভাই- বোন, মা- বাবা, ছোট ছোট শিশুর বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার, আকুতি মিনতি, কান্নার বিভিন্ন প্রকারের আওয়াজ । এখনো ভাবতে গেলে দু-চোখে পানি চলে আসে তার। ওই স্মৃতিগুলো মনে করতে চায় না, কারন মনে পড়লে সে নিজেকে নিয়ন্ত্রনে রাখতে পারে না। অনেক চেষ্টা করেও ভুলতে পারে না সে। ভোলা যায় না সেই মর্মান্তিক দূর্ঘটনার কথা। এমন একটি ভয়ানক মর্মান্তিক দূর্ঘটনা জীবনে এনে দিয়েছে বিশাল পরিবর্তন। নিজেকে যখন ভাবে তখনই সেই ভয়ানক স্মৃতিগুলো চোখের সামনে ভেসে বেড়ায় তার জীবনে প্রতিটি অংশে।
বেচেঁ যাওয়া শ্রমিকের জন্য বিভিন্ন জনগন,কারকাখানার মালিক, সংঘঠন’র পাশাপাশি সরকার তাদের আশার আলোর হাত বাড়িয়ে দেন অল্প কিছুদিনের মধ্যেই।
এমননি এক নারী শ্রমিক শিরিন আক্তারের বাড়ী ময়মনসিংহ জেলার সোনাকান্দী গ্রামে তার বাবা আক্কাস মিয়া একজন খেটে খাওয়া কৃষক। জমি-জমা বলতে নেই তাদের কিছুই । রয়েছে সামান্য একটু ভিটে মাটি। সংসার চলে তার অর্থ এবং এক অভাবে মধ্য দিয়ে । নূন আনতে মানতা ফুরায় পানতা আনতে ঘি যেন এক ভগ্যের ব্যাপার হয়ে দারায় তার জীবনে। তার পরিবারে রয়েছে ২ বোন ১ ভাই । তিনি ভাই বোনের মধ্য বড় মেয়ে পরেছেন মাত্র ৭ম শ্রেণি পর্যন্ত । তার জীবনের জন্য লেখা-পরা শেষ না করেই সংসারের দু:খ -কষ্ট লাগবের জন্য চাকুরির আশায় তিনি চলে আসেন সাভারের তার খালার বাসায় । বয়স কম থাকায় বিভিন্ন স্থানে ঘুরা ফেরা করার পর চাকুরি না পেয়ে এক হতাশা গ্রস্থ হয়ে পরেছিলেন তিনি।
হতাশা গ্রস্থ , দু:খ-কষ্টের জীবন নিয়ে তার ভাগ্যে জুটেছিল ধ্বসে যাওয়া রানা প্লাজার ৮ম তলা নিউ ওয়েফ ষ্টাইল লি: গার্মেন্টস কারখানার সুইং হেলাপার হিসেবে ৬ মাস কাজ করার পর যেন এক ভংকর মৃত্যর ফাদঁ সৃষ্টি হয় সেখানে। ধ্বসের পর বিভিন্ন স্থানে তার খালা সরুফা আক্তার ( জোৎ¯œাবাুন) ও পরিবার লোক খুজাখুজির পর একপর্যায়ে হতাস হয়ে পরছিল। পরিবার ভেবে নিয়েছিল সে বেছে আছে কি নেই।
শিরিন আত্ব রক্ষার জন্য বেছে নেন সুইং মেশিনের নিচের স্থানে। তারপর সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে । পরে দেড় ঘন্টা অচেতন অবস্থ্যায় থাকার পর সে জ্ঞান ফিরে পায়। তার আত্ব চিৎকারের শব্দ শুনে তার পাশেই বেচেঁ থাকা এক শ্রমিক মোবাইল ফোন দিয়ে তাকে সহযোগিতা করে এবং সে তার পরিবারকে ফোন দিয়ে তার বেচে থাকার নির্দিষ্ট জায়গার ঠিকানা জানালে চলে উদ্ধার তৎপরতা। উদ্ধার কর্মীদের কে জানালে বেলা ১১ ঘটিকার সময় তাকে আহত অবস্থ্যায় প্রথমে এনাম মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয় । তিনি জানান আহত অবস্থ্যায় তার একটি ডান পা ভেঙ্গে যায় এবং নাকের মধ্য দিয়ে রক্ত ঝরে। ডাক্তাররা সঠিক ভাবে চিকিৎসার ফলে সে এখনো সুস্থ্য হয়ে বেচে আছেন।
শিরিন আক্তার জানান, মুহুর্তেই তার আশে পাশে শ্রমিকদের মধ্য নাম জানা মেহেদী সুপারভাজারসহ অনেক শ্রমিক মারা গেছে আবার ফ্লোরে থাকা লাইনচীপ মো: খোকন জীবনকে জয় করে কোন একটা ফাকা গলির মধ্য দিয়ে নিজের চেষ্টায় বের হয় সে সি আর পিতে চিকিৎসাধীন থেকে সুস্থ্য রয়েছেন। আবার পঙ্গ হয়ে বা বাক প্রতিবন্ধি হয়ে কষ্টের সাথে বেচে রয়েছে বহুশ্রমিকের।
বেচেঁ যাওয়া শ্রমিক শিরিন আরো জানায় আগের দিন শ্রমিকরা বুঝতে পারছিল বিল্ডিংটি ধ্বস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তারা কাজে যোগ দেওয়ার আগে থেকেই সতর্ক ছিল। কারন ৭ম তলার ১টি পিলার আগে থেকেই ও ৩য় তলায় ৩টি পিলার ফেটে গিয়েছিল ২৩ এপ্রিল। দুপুরে ছুটি ঘোষনা করে। কিন্তু উপায় নেই একদিন হাজিরা না দিলে চাকুরির যাওয়ার ভয় ছিল তাদের মধ্য তবুও জীবন-যুদ্ধে বেচে থাকার জন্য শ্রমিকরা কাজে যোগদান করে ২৪ এপ্রিল।
২৪ এপ্রিল ঐ দিন সকালে বিদ্যুৎ না থাকায় জেনারেটর চলছিল হঠাৎ জেনারেটর বন্ধ হয়ে গেলে নেমে আসে এক অন্ধকারাচ্ছন্ন। তারপর সকাল ৯ ঘটিকার সময় মিনিটের মহুর্তেই এক ধ্বস নামে বিল্ডংটির। রানাপ্লাজার চারদিকে ধুলুবালিতের দিশেহারা হয়ে পরছিলেন পথচারিরা । তারাও জীবন বাচার জন্য ছুটতে থাকে এদিক-সেদিক। তারপর ধুলাবালী শেষ হলে এক হৃদয় বিদারক সৃষ্টি হয়। খবর সংগ্রহ করতে নামে ইলেট্রনিক্স ও অনলাইন এবং প্রিন্ট মিডিয়ায় সংবাদ কর্মীরা সংবাদটি টপ অব দ্যা শিরোনাম হয় এবং ছড়িয়ে পরে সাভারসহ সারা বাংলাদেশে ও বিদেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে। ধ্বসে যাওয়ার পর থেকেই চলতে থাকে উদ্ধার কর্মী দিয়ে উদ্ধার তৎপরতা । উদ্বারকর্মীদের পাশাপাশি সেনাবাহীনির উদ্ধার তৎপরাতার মধ্য দিয়ে শেষ হয়।
শিরিন আক্তারের মতো অনেক শ্রমিকরা তাদের এই শ্রমের বিনিময়ে যে টাকা পান তা দিয়ে চলে তাদের সংসার জীবন। শিরিন আক্তার আহত অবস্থ্যায় দির্ঘ ছয় মাস বসে ঔষদ,চিকিৎসা, খাওয়ার পর নিজেকে সে ভোজা মনে করেন। পরে সকল ভয়-ভীতি ছেড়ে আবার চাকুরীর আশায় ঘুরতে থাকেন। চাকুরি নেন সাভারের নয়াবাড়ী একটি সাব-গার্মেন্টস কারখানায়। সেখানে বেতন ভাতা ঠিক মত না দিলে চাকুরি ছেড়ে দেন তিনি। পরে বেবীলন ক্যাজিওয়্যার গার্মেন্টস কারখানায় সুইং অপারেটর হিসেবে চাকুরিতে যোগদান করেন । জীবন সংগ্রামে বেঁচে থাকার জন্য বর্তমানে বেবীলন ক্যাজিওয়্যার গার্মেন্টস কারখানায় সিনিয়র সুইং অপারেটর হিসেবে কাছ করছেন। বর্তমানে বেতন পান ৭ হাজার ৩ শত টাকা ও অতিরিক্ত টাকা। তিনি আরো জানান এ বেতন ও অতিরিক্ত টাকা দিয়ে সাভারের বাসা ভাড়া ও নিজের খরচ চালিয়ে কিছু টাকা থাকে সে টাকা বাবা-মার কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তার এই টাকা দিয়ে চলে সাভার ও বাড়ির বাবা-মার সংসার। এ অর্থ পেয়ে সংসারে খরচা করে সঞ্চয় করা সম্ভব হয় না। তিনি চিন্তিত ভবিষ্যৎ জীবন কিভাবে অতিবাহিত করবেন তার জানা নেই । সকলের কাছে তিনি তার জীবনের মঙ্গল কামনা করে দোয়া চেয়েছেন।

২৪ এপ্রিল ২০১৭,/ রুমকী।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি