সোমবার,১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


শিশুকে নিয়ে রেললাইনে ঝাঁপ দিয়ে মায়ের আত্মহত্যা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৩.০৫.২০১৭

পূর্বাশা  ডেস্ক:

পঞ্চগড়ে ১৮ মাস বছর বয়সী শারীরিক প্রতিবন্ধী কন্যাশিশু নিয়ে পার্বতিপুর থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী একটি ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন শ্যামলী বসাক (২১) নামের এক মা।

শনিবার দুপুরে সদর উপজেলার ধাক্কামারা ইউনিয়নের বকুলতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এর দেড়ঘণ্টা পর একই ট্রেন আবারও মরদেহের ওপর দিয়ে চলে যায়। ঘটনার পর সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) সুদর্শন রায়সহ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, তিন বছর আগে আাটোয়ারী উপজেলার বার আওলিয়া এলাকার অরুন বসাকের মেয়ে শ্যামলী বসাকের সঙ্গে ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া ঘুরনগাছ এলাকার প্রদিপের বিয়ে হয়।

বিয়ের ৬ মাসের মাথায় সংসারে বনিবনা না হওয়ায় স্বামীর বাড়ি ছেড়ে বাবার বাড়িতে বসবাস শুরু করেন শ্যামলী। এরই মধ্যে স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক ও নারী নির্যাতের একটি মামলাও করেন তিনি। বছর দেড়েক আগে বাবার বাড়িতে প্রতিবন্ধী কন্যশিশু মনি বসাকের জন্ম হয়। এর কিছুদিন পর অজ্ঞাত কারণে আবার সেখান থেকে শিশুকে নিয়ে পাশের নানি বাড়িতে চলে যান। সর্বশেষ শিশুকে নিয়ে সেখানেই ছিলেন শ্যামলী।

এদিকে সংসারের নানান অনটনের মধ্যে প্রতিবন্ধী শিশুর চিকিৎসা খরচ জোগাতে হাপিয়ে উঠেন শ্যামলী। শনিবার সকালে প্রতিদিনের পঞ্চগড়ের প্রতিবন্ধী পরিচর্যা কেন্দ্রে মেয়ের চিকিৎসা (ব্যায়াম) শেষে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। দুপুরে ট্রেনে কাটা পড়া অবস্থায় শিশু মনি বসাক এবং তার মা শ্যামলী সবাকের মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা।

অন্যদিকে আত্মহত্যার পর মা ও মেয়ের মরদেহ রেল লাইনেই পড়ে ছিল। ঘণ্টা দেড়েক পর ফেরতের সময় স্থানীয়রা ট্রেনটি থামাতে হাত তুলে চিৎকার করতে থাকেন। কিন্তু মরদেহের ওপর দিয়েই চালিয়ে দেন ট্রেনের চালক। এতে ছিন্ন ছিন্ন হয়ে যায় মা ও মেয়ের মরদেহ। এ ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

পঞ্চগড় রেলের স্টেশন মাস্টার বজলুর রহমান বলেন, কারও আত্মহত্যা এবং রেল লাইনে পড়ে থাকা মরদেহের কোনো খবর শুনিনি। তবে গার্ড আব্দুর রহিম মোবাইল ফোনে বলেন, লোকজন হাত উঁচিয়ে ট্রেনটি থামতে বলতে পারে। তাদের হাতে কোনো লাল পতাকা ছিল না।

নিহতের বাবা অরুন বসাক বলেন, শ্যামলী বিয়ের কিছুদিনের মধ্যেই স্বামীর বাড়ি থেকে চলে আসে। পরে স্বামীর বিরুদ্ধে একটি মামলাও করে। শিশুটির জন্মের পরও সে স্বামীর বাড়ি যায়নি। প্রতিদিন প্রতিবন্ধী শিশুকে নিয়ে পঞ্চগড়ের পরিচর্যা কেন্দ্রে যেতো। আজ কীভাবে কী হলো বুঝতে পারছি না।

সদর থানা পুলিশের ভরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল হাসান সরকার বলেন, খবর শুনে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে যাই। এটা রেল পুলিশের বিষয়। তাদের খবর দেয়া হয়েছে। তারা এলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পূর্বাশানিউজ/১৩-মে,২০১৭/ফারজানা



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি