শনিবার,২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


স্বাধীনতার পর দেশে ১ম এক নারীর মৃত্যুদন্ডের প্রস্তুতি চলছে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.০২.২০২১


আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

স্বাধীনতার পর এই প্রথম দেশে এক মহিলার ফাঁসির প্রস্তুতি শুরু হল। ভারতের মথুরার জেলে সেই মহিলার ফাঁসির জন্য প্রস্তুত পুরো জেল কতৃপক্ষ। উত্তরপ্রদেশের মথুরার জেলে থাকা একমাত্র ফাঁসির ঘরটিতেই আমরোহার শবনম নামের ওই মহিলার ফাঁসি হতে পারে। নির্ভয়ার দোষীদের ফাঁসিতে ঝোলানো পবন জল্লাদ ইতোমধ্যে দুবার ফাঁসিকাঠের পরীক্ষা করেছেন।

এর আগে সুপ্রিম কোর্টে ফাঁসির সিদ্ধান্তের পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ হয়েছে। পরে, শবনমের ফাঁসি মওকুফের আবেদন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে গেলেও তা মওকুফ হয় নি। অপরাধের নৃশংসতার বিচার করে তিনিও ফাঁসির আদেশ বহাল রেখেছেন।

শবনমের ফাঁসি এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। মথুরা জেলে মহিলাদের ফাঁসিঘরে শবনমকে ফাঁসি দেওয়া হবে। বহুদিন ধরে অব্যবহৃত সেই ঘর। এমনকী ফাঁসিকাঠের ব্যবহারও এর আগে কখনও হয়নি। তাই জেল কর্তৃপক্ষের চাপ বেড়েছে। ডেথ ওয়ারেন্ট জারি হলেই শবনম নামের সেই মহিলা অপরাধীর ফাঁসি হবে। তার আগে সমস্ত প্রস্তুতি শেষ রাখতে চাইছে জেল কর্তৃপক্ষ।

১৫০ বছর আগে এই ঘর তৈরি হয়েছিল। তবে কোনওদিন সেখানে ফাঁসি হয়নি। শবনমের ফাঁসির দড়ি আনা হবে বিহারের বক্সার থেকে। স্বাধীনতার পর প্রথম মহিলা হিসাবে শবনমকে ফাঁসিতে ঝোলানো হবে।

আমরোহা জেলার হাসানপুরের বাসিন্দা শবনম। বাবনেখেড়ি গ্রামের এক শিক্ষকের একমাত্র মেয়ে সে। সেলিম নামের স্থানীয় এক যুবকের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে শবনম। সুফি পরিবারের মেয়ে শবনম ইংরেজি ও ভূগোলে এমএম পাশ করেছিলেন। উল্টোদিকে সেলিম ক্লাস ফাইভ ফেল। দিনমজুর হিসাবে কাজ করত সেলিম। ফলে শবনমের সঙ্গে সেলিমের সম্পর্ক বাড়ির লোক মেনে নেয়নি। ২০০৮ সালের ১৪ এপ্রিলের রাতে প্রেমিক সেলিমের সঙ্গে বাবা, মা, দশ মাসের ভাইপো সহ পরিবারের সাতজনকে খুন করেছিল শবনম। কুঠার দিয়ে পরিবারের সদস্যদের শরীরে ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছিল তারা দু’জন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি