রবিবার,১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


সৈকতে বেড়াতে এনে বৃদ্ধা মাকে ফেলে পালাল মেয়ে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০৫.২০২১


আতর্জাতিক ডেস্কঃ

করোনাকালে যে যার মতো অর্থ সহায়তা করছেন, অচেনা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। কেউ আবার সরাসরি সাহায্য না করলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অক্সিজেন, ওষুধ বা হাসপাতালের শয্যা সংক্রান্ত তথ্য দিয়ে সেবা করে যাচ্ছেন।

ঠিক এই সময় এক বৃদ্ধাকে ফেলে পালিয়েছে তার স্বজনরা। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের তাজপুর সমুদ্র সৈকতে। ‘জল আনতে যাচ্ছি’ বলে অসুস্থ বৃদ্ধাকে ফেলে পালাল মেয়ে ও নাতি। পরে স্থানীয়দের উদ্যোগে ওই বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে সমুদ্র সৈকতে ওই মহিলাকে কাতরাতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দীর্ঘক্ষণ তাকে একা পড়ে থাকতে দেখে সন্দেহ দেখা দেয়। কিন্তু বৃদ্ধা করোনায় সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারেন ভেবে আতঙ্কে তার কাছে ঘেঁষার সাহস পাচ্ছিলেন না কেউ। শেষমেশ পুলিশে খবর দেওয়া হয়। তারাই ওই নারীকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

গোটা ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী সুকুমার রায় নামের এক স্থানীয় ব্যবসায়ী। তিনি বলেন, ‘বৃদ্ধাকে দেখতে অনেকেই ভিড় করেছিলেন সৈকতে। কিন্তু করোনার ভয়ে কাছে যাচ্ছিলেন না কেউ। বাধ্য হয়েই পুলিশের শরণাপন্ন হই। পুলিশ এলে পিপিই কিট পরে আমিও হাত লাগাই। বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে দিঘা স্টেট জেনারেল হাসপাতালে তাকে ভর্তি করে এসেছি।’

ওই বৃদ্ধাকে স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে মন্দারমণি উপকূল থানার পুলিশ। তার কভিড হয়েছে কিনা, তা স্পষ্ট নয়। বৃদ্ধা অসুস্থ হওয়ায় ঠিকমতো কথা বলতে পারেননি।

পুলিশ জানিয়েছে, কলকাতার শ্যামবাজারের বাসিন্দা তিনি। মেয়ে ও নাতির সঙ্গে ঘুরতে যান। একপর্যায়ে পিপাসা পেলে জল আনার নাম করে বৃদ্ধাকে ফেলে পালায় তার স্বজনরা।

হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এখন স্থিতিশীল তিনি। নিজে থেকে নড়াচড়া করছেন। চিকিৎসায় সাড়াও দিচ্ছেন। তবে শরীর অত্যন্ত দুর্বল। আগামী কয়েক দিন তার চিকিৎসা চলবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি