শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


পরমাণু বোমা নিয়ে উত্তেজনা: রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৮.০২.২০২২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যে ভয় পাওয়া হচ্ছিল শেষে এসে যেনো তাই সত্যি হচ্ছে। পারমাণবিক অস্ত্রে হাত রেখেই যুদ্ধে দর কষাকষি করতে নামছে রাশিয়া। রোববারই খবর পাওয়া গেলো, দেশের পরমাণু অস্ত্রকে বিশেষ সতর্কাবস্থায় রাখার নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, আলোচনায় ইউক্রেনকে চাপে রাখতেই এই কৌশল হাতে নিয়েছেন তিনি। তবে এই নির্দেশকে বিপজ্জনক এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে বর্ণনা করেছে সামরিক জোট ন্যাটো।

জোটের প্রধান ইয়েন্স স্টলটেনবার্গ বলেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পর পুতিনের এমন নির্দেশ পরিস্থিতিকে আরো গুরুতর করে তুলছে। রাশিয়ার কৌশলগত ক্ষেপণাস্ত্র বাহিনীর জন্য এটাই সর্বোচ্চ স্তরের সতর্কাবস্থা। পুতিন পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের হুমকি সৃষ্টি করবেন সে ইঙ্গিত অবশ্য আগেই মিলেছিল। ইউক্রেনে হামলা চালানোর পরেই তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিলেন, এই আক্রমণের পর তৃতীয় কোনো শক্তি হস্তক্ষেপ করলে তার এমন পরিণতি হবে যা ইতিহাসে কখনও সম্মুখীন হয়নি।

অনেক বিশ্লেষকই মনে করেন, এর মধ্য দিয়ে পুতিন মূলত পারমাণবিক অস্ত্রের হুমকিই দিয়েছেন। এ নিয়ে তখন ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জিন-ইভেস লে ড্রিয়ান বলেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন যখন পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের হুমকি দিচ্ছেন, তখন তাকে বুঝতে হবে ন্যাটোর হাতেও এ অস্ত্র রয়েছে।

পুতিন যদিও বলছেন, ন্যাটোভুক্ত দেশগুলো যে আক্রমণাত্মক বক্তব্য-বিবৃতি দিচ্ছে, তার প্রেক্ষিতেই পরমাণু অস্ত্রকে বিশেষ সতর্কাবস্থায় রাখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে পুতিন বলেন, আপনারা দেখতে পাচ্ছেন শুধু পশ্চিমা দেশগুলো আমাদের দেশের অর্থনৈতিক ধারার বিরুদ্ধে শত্রুতামূলক পদক্ষেপই নিচ্ছে না। একই সঙ্গে ন্যাটোর শীর্ষ স্থানীয় দেশগুলোর নেতারা আমাদের দেশের বিরুদ্ধে আগ্রাসী মন্তব্য করছেন। আমি জানি আপনারা সবাই জানেন এই নিষেধাজ্ঞা বেআইনি।

তবে যুক্তরাষ্ট্র বলছে রাশিয়ার এমন অবস্থান ‘সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য’। জাতিসংঘে মার্কিন দূত লিন্ডা টমাস-গ্রিনফিল্ড সিবিএস নিউজকে বলেন, পুতিন এখন রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের উত্তেজনা বৃদ্ধি করতে ‘সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য’ উপায় বেছে নিয়েছেন। এদিকে পেন্টাগনের কর্মকর্তারা বলেছেন, পুতিনের এই ঘোষণা একটি ‘অপ্রয়োজনীয়’ পদক্ষেপ। এটি উত্তেজনা বৃদ্ধি করতে বিপজ্জনক একটি উদ্যোগ, যা ভুল হিসাবের ঝুঁকি বাড়াবে। পুতিনের ওই আদেশ কীভাবে কার্যকর করা হবে যুক্তরাষ্ট্র এখনো তার মূল্যায়ন করছে। প্রতিক্রিয়া হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব পারমাণবিক অস্ত্রভাণ্ডারের অবস্থানের পরিবর্তন করা হয়েছে কিনা তা বলতে অস্বীকার করেছেন দেশটির কর্মকর্তারা।

এদিকে জাপানে মার্কিন পরমাণু বোমা মোতায়েনের পরামর্শ দিয়েছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। রাশিয়ার ইউক্রেন আক্রমণের প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, জাপানের উচিৎ যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু অস্ত্র মোতায়েন অনুমোদন করার বিষয়টি বিবেচনা করা। এক টেলিভিশন বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিবিসি জানিয়েছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পর উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছে জাপান। তারা তাইওয়ান ও পূর্ব চীন সাগরে জাপানের নিয়ন্ত্রণে থাকা দ্বীপের উপরে চীনের আক্রমণ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে। পরমাণু অস্ত্রের বিষয়টি জাপানের কাছে সবথেকে বড় নিষিদ্ধ বিষয়গুলোর একটি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে দেশটি পরমাণু বোমা হামলার শিকার হয়। এরপর থেকে জাপানে এই অস্ত্র নির্মাণ ও মোতায়েন নিষিদ্ধ। তারপরেও তাইওয়ান ও জাপানি ভূমির নিরাপত্তায় মার্কিন পরমাণু বোমা মোতায়েনের পরামর্শ দিয়েছেন আবে। তিনি আরও বিশ্বাস করেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের উচিৎ চীনকে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেয়া যে, তারা যদি কোনো ধরণের আক্রমণ চালায় তাহলে যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ানকে রক্ষা করবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি