শনিবার,২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » রাজনীতি » ছাত্রলীগের জেলা পর্যায়ের নেতাদের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করার নির্দেশ


ছাত্রলীগের জেলা পর্যায়ের নেতাদের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করার নির্দেশ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২০.০৯.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

আওয়ামী লীগের যৌথসভায় সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন বিশেষ করে ছাত্রলীগের জেলা পর্যায়ের নেতাদের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করার নির্দেশ দিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বিরোধী দলের কর্মসূচি রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলার নির্দেশ দেন। তবে সাংঘর্ষিক কর্মসূচিতে যাওয়ার দরকার নেই এমন কথাও বলা হয় এ যৌথসভায়। একই সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা এবং তাদের ফাঁদ সম্পর্কে নগর ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সতর্ক করেন তিনি। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ে সোমবার এ যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। অংশ নেন ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের শীর্ষ নেতারা। এতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা বিভিন্ন নির্দেশনা দেন বলে উপস্থিত একাধিক নেতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

বিতর্কিত ও শিবির নেতাকর্মীদের ছাত্রলীগের জেলার দায়িত্বে আনার বিষয়ে সভায় ওবায়দুল কাদের চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এজন্য তিনি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে ভর্ৎসনা করেন। ছাত্রলীগ সম্পর্কে গণমাধ্যমে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশের বিষয় উল্লেখ করে এ সংগঠনের দুই নেতার কাছে কৈফিয়তও চান তিনি। দলের নেতাকর্মীদের হুঁশিয়ার করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, কেউ যদি হামলা-মামলায় জড়িত হয় তাহলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। আওয়ামী লীগ কখনো আক্রমণকারীর ভূমিকায় নয়, আওয়ামী লীগ সংযমী। তবে সতর্ক থাকতে হবে।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান বলেন, বিএনপি যে একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির ষড়যন্ত্র করছে, সে বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের এক সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিতর্কিত ফোনালাপ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের ডাকা ধর্মঘটের বিষয়টি নিয়ে যৌথসভায় আলোচনা হয়। এ সময় জেলা পর্যায়ের নেতাদের কর্মকাণ্ডের বিষয়ে খোঁজখবর রাখতে সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে নির্দেশ দেন ওবায়দুল কাদের।

দলটির নেতারা জানান, সভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বলেছেন- আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাসী দল। বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলো তাদের মতো কর্মসূচি পালন করবে। আমরা আমাদের মতো কর্মসূচি পালন করব। আওয়ামী লীগ কারও গণতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দেবে না। প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে নির্ধারিত স্থানেই সতর্ক থেকেই আওয়ামী লীগ তার কর্মসূচি পালন করবে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে উদ্ধৃত করে দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা বলেন, নেত্রী স্পষ্টভাবেই বলে দিয়েছেন কারও কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া বা হামলা চালানো যাবে না। কেউ কোনো হামলায় জড়ালে তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। কারণ বিএনপি দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। তারা এসব করে উসকানি দিয়ে একটা ঘটনা ঘটানোর মধ্য দিয়ে বিশ্বে একটা মেসেজ দিতে চাইছে যে বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই। বিরোধীদের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নেই, বিরোধীদের ওপর হামলা মামলা নির্যাতন চালাচ্ছে সরকার। তাই তাদের পাতা ফাঁদে পা দেওয়া যাবে না।

যৌথসভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ও কামরুল ইসলাম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, ড. হাছান মাহমুদ, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিমসহ কেন্দ্রীয় এবং ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতারা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি