শনিবার,১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


সমাবেশের নামে পিকনিক করছে বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২০.১১.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি সমাবেশের নামে বড় পিকনিক করছে এবং সে জন্য চাঁদাবাজি করছে। আজ রোববার সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় বিএনপির বিভিন্ন সমাবেশ নিয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি, বিএনপির সমাবেশগুলো আসলে বড় পিকনিক। সিলেটের সমাবেশে তারা তিন দিন আগে গেছে। হোটেলে খাওয়া-দাওয়া, তাস খেলা আবার মাঠের মধ্যে তাঁবু টানিয়ে রান্না করে খেয়েছে। এটা একটা বড় পিকনিক।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘শীতের সময় আমরা পিকনিকে যেতাম। বিএনপির নেতাকর্মীরা শুধু সিলেট অঞ্চল থেকে নয়—কুমিল্লা, ময়মনসিংহ, ঢাকা থেকে গিয়ে সমাবেশের নামে বড় পিকনিক করেছে। এগুলোর জন্য সারা দেশে চাঁদাবাজি করছে। অনেক ব্যবসায়ী আমাদের অভিযোগ দিয়েছেন—বিএনপি ভয়ভীতি প্রদর্শন করে তাদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছে বা করার চেষ্টা করছে।’

সাংবাদিকতার নামে কারও রাজনীতি করা উচিত নয় উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘গতকাল সিলেটে বিএনপির এবং ঢাকার গাজীপুরে আওয়ামী লীগের সমাবেশ হয়েছে। উপস্থিতির বিচারে দুটি সমাবেশেই সমপরিমাণ লোকসমাগম হয়েছে। তবে কারও কারও মতে গাজীপুরের সমাবেশে বিএনপির সিলেটের সমাবেশের চেয়ে বেশি মানুষ হয়েছে। যদিও বা সেটি কোনও বিভাগীয় বা জেলা সমাবেশ নয়। সেটি ছিল জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। কিন্তু কোনও কোনও কাগজে, অনলাইনে দেখলাম গাজীপুরের সমাবেশের ছবিটা দিয়েছে মঞ্চের এবং দর্শকের একটা অংশ মাত্র; আর বিএনপির সমাবেশের ছবিটা দূর থেকে নিয়ে দেওয়া হয়েছে, যাতে মনে হয় অনেক লোক হয়েছে। অবশ্যই বিএনপির সমাবেশ হবে, সেটি পত্রপত্রিকায় প্রচার পাবে। কিন্তু এ ধরনের উপস্থাপনা সমীচীন কিনা আপনাদের কাছে প্রশ্ন।’

তিনি বলেন, ‘শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমের এ ধরনের অপসাংবাদিকতা করা উচিত নয়, বা সাংবাদিকতার নামে রাজনীতি করা সমীচীন নয়। অনেক সময় দেখা যায়, সাংবাদিকরা হাউজে যে রিপোর্ট, যে ছবি দিয়েছেন—সেটি এডিটিং প্যানেলে গিয়ে পরিবর্তন হয়ে যায়। এ বিষয়গুলো খেয়াল রাখা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।’

১০ ডিসেম্বর নয়া পল্টনে সমাবেশের অনুমতি না দেওয়া হলে বিএনপি সারা ঢাকা শহরে সমাবেশ করবে—এ মন্তব্যের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি যে ধরনের গণসমাবেশ করতে চায়, সে জন্য উপযুক্ত জায়গা হচ্ছে পূর্বাচল। এ ছাড়া মিরপুর ও বুড়িগঙ্গা নদীর পাড়েও জায়গা আছে, সেগুলোও অনেকে বলছে। বিএনপি যে সভা সমাবেশ করছে, সরকার তাদের সর্বতোভাবে সহায়তা করছে। গতকাল সিলেট শহরের মোড়ে মোড়ে পুলিশ ছিল, যাতে তারা নির্বিঘ্নে সভা সমাবেশ করতে পারে। আর আমরা যখন সভা সমাবেশ করতাম, তখন পুলিশ আমাদের ওপর লাঠিপেটা করতো, কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করতো, আর বিএনপি আমাদের সমাবেশে বোমা ছুড়তো। এটিই হচ্ছে তাদের সঙ্গে আমাদের পার্থক্য।’

বিএনপির ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ নিয়ন্ত্রণ করা হবে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কোনও সমাবেশ নিয়ন্ত্রণ করতে চাই না। নিয়ন্ত্রণ করি না, করাও হবে না। কিন্তু সমাবেশের নামে যদি কেউ বিশৃঙ্খলা করে, তাহলে সরকারকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জনগণের স্বার্থে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হয়। আমরা অতীতেও দেখেছি, বিএনপি সমাবেশের নামে নানা জায়গায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে। বাস ট্রাক পুড়িয়েছে মানুষ পুড়িয়েছে। আর ডিসেম্বরের ১৬ তারিখে পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছিল। বিজয়ের মাসে ১০ ডিসেম্বর যদি পাকিস্তানপন্থী বিএনপির লোকজন, মির্জা ফখরুলরা ঢাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার অপচেষ্টা চালায়, জনগণ তাদের পাকিস্তানিদের মতোই আত্মসমর্পণ করাবে।’



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি