মঙ্গলবার,২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


টাইব্রেকারে জাপানকে হারিয়ে শেষ আটে ক্রোয়েশিয়া


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৬.১২.২০২২

স্পোর্টস ডেস্ক:

১২০ মিনিটের লড়াই হলো দারুণ। তারপরও ম্যাচ সমতা থাকল ১-১ গোলে। ম্যাচ গড়াল টাইব্রেকারে। যেখানে তিন শট ঠেকিয়ে ক্রোয়েশিয়ার নায়ক গোলরক্ষক ডমিনিক লিভাকোভিচ। ইতিহাস গড়া হলো না জাপানের। সোমবার শেষ ষোলোর ম্যাচে টাইব্রেকার ভাগ্যে ব্লু সামুরাইদের হারিয়ে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেল ক্রোয়েশিয়া।

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল কখনো খেলা হয়নি জাপানের। ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপে জয়ের রেকর্ডও ছিল না তাদের। তারপরও গ্রুপ পর্বে স্পেন ও জার্মানিকে হারানো জাপান ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে ছিল উজ্জীবিত। ম্যাচের প্রথম গোলটিও ছিল তাদের। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে সমতা আনে ক্রোয়েশিয়া। ৯০ মিনিটের খেলায় একই ব্যবধানে সমতা। অতিরিক্ত ত্রিশ মিনিটে হয়নি কোনো গোল।
জাপানের হতাশা
জাপানের হতাশাছবি: সংগৃহীত

ম্যাচ গড়ায় তখন টাইব্রেকারে। যেখানে শেষ হাসি গত বিশ্বকাপের রানার্স আপ ক্রোয়েশিয়ার। জাপানের নেওয়া প্রথম দুটি শটই ঠেকিয়ে দেন ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক লিভাকোভিচ। অন্যদিকে প্রথম দুটি শটেই সফল ক্রোয়েশিয়া। তৃতীয় শটে জাপানের হয়ে গোল করেন আসানো। ক্রোয়েশিয়ার তৃতীয় শট পোস্টে লেগে ফিরে আসে। জাপানের চতুর্থ শট রুখে দেন ক্রোয়াট গোলরক্ষক। চতুর্থ শটে গোল করে ক্রোয়েশিয়াকে উৎসবে ভাসান মারিও পাসেলিচ (৩-১)। শেষ আটে ক্রোয়েশিয়ার প্রতিপক্ষ ব্রাজিল-দক্ষিণ কোরিয়া ম্যাচের জয়ী দল।

কাতারের আল জয়নব স্টেডিয়ামে ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে গোলের সুযোগ পেয়েছিল জাপান। ওয়াতারু এনদোর ক্রসে ডিফেন্ডার শোগো তানিগুচির হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। প্রতিপক্ষের ভুলে ৯ মিনিটে গোলের সুযোগ ক্রোয়েশিয়ার সামনে। জাপানের ডিফেন্ডার তাকেহিরো তোমিইয়াসু বলের নিয়ন্ত্রণ হারালে পেয়ে যান ইভান পেরিসিচ। বক্সে ঢুকে তার নেওয়া শট অবশ্য রুখে দেন জাপান গোলরক্ষক।
টাইব্রেকারে তিন শট রুখে দেয়া ক্রোয়াট গোলরক্ষক লিভাকোভিচ
টাইব্রেকারে তিন শট রুখে দেয়া ক্রোয়াট গোলরক্ষক লিভাকোভিচছবি: সংগৃহীত

১৩ মিনিটে জাপানের আরেকটি সুযোগ। ডান দিক থেকে বক্সে দারুণ বল বাড়ান জুনিয়া ইতো। ছুটে গিয়ে স্লাইডে বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি ফরোয়ার্ড মায়েদা। কাউন্টার অ্যাটাকে ৪০ মিনিটে আবার সুযোগ পায় জাপান। তবে কামাদার শটে বল চলে যায় পোস্টের ওপর দিয়ে।

৪৩ মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায় জাপান। ডান দিক থেকে বক্সে প্রতিপক্ষের ক্রস ক্লিয়ার করতে পারেনি ক্রোয়াটরা। কাছ থেকে শটে জাপানকে লিড এনে দেন মায়েদা।

দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচে ফেরে ক্রোয়েশিয়া। ৫৫ মিনিটে লোভারনের দারুণ ক্রসে বুলেট গতির হেডে জাপান গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ইভান পেরেসিচ। ম্যাচে আসে ১-১ সমতা। এর দুই মিনিট পর এন্দোর দুর্দান্ত শট লাফিয়ে ফিস্ট করে সেভ করেন ক্রোয়াট গোলরক্ষক লিভাকোভিচ।

৬৩ মিনিটে ক্রোয়াট অধিনায়ক লুকাস মডরিচের হাফ ভলির বুলেট গতির শট। কোনোমতে লাফিয়ে কর্নার বিনিময়ে রক্ষা করেন জাপান গোলরক্ষক। এর মিনিট তিনেক পর গোলের সুবর্ণ সুযোগ হারায় গত বিশ্বকাপের রানার্সআপরা। ক্রামারিচের দারুণ ক্রসে মাথা লাগিয়েছিলেন বুদিমির। অল্পের জন্য তা থাকেন লক্ষ্যে।

নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা শেষ হয় ১-১ সমতায়। অতিরিক্ত ত্রিশ মিনিটেও দেখা মেলেনি গোলের। টাইব্রেকার ভাগ্যে শেষ অবধি শেষ আটে নাম লেখায় ক্রোয়েশিয়া। অশ্রুসিক্ত বিদায় জাপানের।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি