সোমবার,২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে অভিভাবকদের বিরূপ প্রতিক্রিয়া


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২০.০৫.২০২৩

কুবি প্রতিনিধি:

গুচ্ছভুক্ত ‘খ’ ইউনিটের পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়সহ আশেপাশের কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছে ৬ হাজার ৮শ ২৬ জন পরীক্ষার্থী। পরীক্ষার্থীদের অনেকেরই সাথে ছিলো তাদের অভিভাবকেরা।

পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি সরকার কর্তৃক পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের ভোগান্তি কমানোর জন্য করা হলেও তা কিছু ক্ষেত্রে বেড়েছে। কেউ কেউ আবার বলছেন একটি পরীক্ষা দিয়েই ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সীটের সম্ভাবনা থাকায় মানসিক চাপ বেড়েছে। তবে কয়েকজন আবার এই পদ্ধতিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

খুলনা থেকে আগত মুনতাসির ফুয়াদ নামের এক পরীক্ষার্থীর বাবা আজিজুর রহমান বলেন, গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার কারণে আমাদের একটা জায়গায় পরীক্ষা দিয়েই বাকি বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাবার সম্ভাবনা যেমন হয়েছে সেই সাথে একটি পরীক্ষা খারাপ হলেই বাকিসব বিশ্ববিদ্যালয় হাতছাড়া হবারও সম্ভাবনা আছে।

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার কারণে শিক্ষার্থীসহ পরীক্ষার্থীর মানসিক চাপ বেড়েছে বলে মনে করছেন অভিভাবকেরা।

চাঁদপুর থেকে আগত আদনান খান নামের এক পরীক্ষার্থীর মা আয়েশা বেগম বলেন, আগে ভিন্ন ভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিলে যেকোনো একটা পরীক্ষা খারাপ হলে পরের পরীক্ষায় ভালো করার সুযোগ ছিলো। তবে এখন শুধু একটা পরীক্ষা হওয়ায় মানসিক চিন্তাটা বেড়ে যায়।

তবে একটা পরীক্ষা দিয়েই ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ হওয়ায় শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের ভোগান্তিসহ আর্থিকভাবে সুবিধা হচ্ছে বলেও মন্তব্য করছেন অভিভাবকেরা।
ঢাকা থেকে আগত তাশফিক আলম নামের এক পরীক্ষার্থীর বড় ভাই নুরুল হুদা বলেন, পূর্বের পদ্ধতিতে ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে পরীক্ষা দেওয়া কোনো শিক্ষার্থীর পক্ষেই সম্ভব হতো না। কেউ কেউ অনেকগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করলেও আলাদা একেকদিন পরীক্ষা হওয়ায় শিক্ষার্থীদের যাতায়াতে সমস্যা হতো। তাই সব বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেওয়া হতো না। গুচ্ছ হবার ফলে এটা এখন আর হয় না।

আর্থিকভাবে নানা সুবিধা পাচ্ছে গুচ্ছের জন্য এমন মন্তব্য করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে আগত পরীক্ষার্থী নুসরাতের বাবা হারুনুর রশিদ। তিনি বলেন, প্রতিটি জেলায় যদি পরীক্ষা দিতে যেতে হতো তাহলে যাতায়াত ভাড়াসহ আবাসন ব্যবস্থা, খাবারসহ অন্যান্য দিকে অনেক টাকা খরচ হতো। যা এই দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির সময় অনেক পরিবারের পক্ষেই বহন করা কষ্টসাধ্য হতো। একটি পরীক্ষা হওয়ায় এদিকে অনেকটাই স্বস্তি হয়েছে।

তাছাড়াও যাদের পরিবারের লোকজন কম তাদের জন্য এই গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি অনেকটা উপকার বয়ে এনেছে। আখাউড়া থেকে আগত পরীক্ষার্থী লামিয়া তাবাসসুমের বাবা মো: নেয়াজ বলেন, পরিবারে আমার মেয়েকে নিয়ে যাতায়াত করার মতো আমি একাই। এরকম পরিবারের যারা তাদের জন্য এই গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি ভালো হয়েছে, কেন না এমন না হলে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব হতো না।

উল্লেখ্য, ২০২০-২১ সেশন থেকে বাংলাদেশের ২০ পাবলিক এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয়ে শুরু হয়েছিলো গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি। ২০২২-২৩ সেশনে দুটি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় যুক্ত হয়ে এই বছরে গুচ্ছ পরীক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয় সংখ্যা ২২টি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি