রবিবার,২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » খেলা » ২০০ কোটির প্রতারণার শিকার রোহিত-কোহলিদের বোর্ড!


২০০ কোটির প্রতারণার শিকার রোহিত-কোহলিদের বোর্ড!


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৫.১২.২০২৩

স্পোর্টস ডেস্ক:

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) আর্থিক প্রতারণার শিকার হয়েছে? দেশটির সংবাদমাধ্যমের খবর, স্পনসরের কাছে এখনো নাকি তাদের ১৫৮ কোটি রুপি বা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২০০ কোটি টাকার বেশি বকেয়া রয়েছে।

ইতিমধ্যে বিসিসিআই আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে । আদালত স্পনসরকে নোটিসও পাঠিয়েছে। দু’সপ্তাহের মধ্যে তাদের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

বাইজুস নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেট দলের স্পনসর হিসাবে চুক্তি ছিল। তবে চুক্তিটি শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু এখনো তাদের ১৫৮ কোটি রুটি বকেয়া আছে বলে অভিযোগ করেছে বিসিসিআই। সেই বকেয়া টাকা মিটিয়ে দেওয়ার দাবিতে বাইজু’স-এর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করেছে ভারতীয় ক্রিকেট সংস্থা। বিসিসিআই ‘ন্যাশনাল কোম্পানি ল ট্রাইবুনাল’-এ অভিযোগ করেছে।

বাইজুসকে ইতিমধ্যে‘নাশনাল কোম্পানি ল ট্রাইবুনাল’ নোটিস পাঠিয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে, ‘এই অভিযোগের জবাব দেওয়ার জন্য বাইজু’স-তে দু’সপ্তাহ সময় দেওয়া হচ্ছে। তার মধ্যে তাদের জানাতে হবে যে কেন এই টাকা বকেয়া রয়েছে। সময়ের মধ্যে জবাব দিতে না পারলে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।’

আগামী ২২ ডিসেম্বর রয়েছে মামলার পরবর্তী শুনানি।

এদিকে বিসিসিআইয়ের দাবি, ৬ মাসের ওপর টাকা বকেয়া রয়েছে। ২০২২ সালের মার্চ মাসে শিক্ষা সংক্রান্ত অ্যাপ বাইজু’স-এর সঙ্গে চুক্তি শেষ হয়েছিল বোর্ডের। সেই সময় পর্যন্ত সব টাকা মিটিয়ে দিয়েছিল বাইজু’স। কিন্তু যত দিন না নতুন জার্সি স্পনসর পাওয়া যাচ্ছে তত দিন বাইজু’স-কে থেকে যাওয়ার অনুরোধ করে বোর্ড। সেই মতো, ২০২২ সালের নভেম্বর মাস পর্যন্ত রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলিদের জার্সি স্পনসর ছিল বাইজু’স।

বোর্ডের অভিযোগ, শেষ ছ’মাসের টাকা মেটায়নি বাইজু’স। সেই কারণেই আইনি পদক্ষেপ করেছে তারা। বাইজু’স অবশ্য জানিয়েছে, বোর্ডের সঙ্গে তাদের কথাবার্তা চলছে। দ্রুত সমস্যা মিটে যাবে।

এর আগে ২০২২ সালের শেষ দিক থেকে আর্থিক সমস্যায় পরে বাইজু’স। ফলে ২০২২ সালের অক্টোবর মাসে ৫ হাজারের বেশি কর্মী ছাঁটাই করে তারা। তার পরেই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে চুক্তি শেষ করে তারা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি