রবিবার,২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


বেচাকেনার হাটের মতো দলকে নির্বাচনে আনা হচ্ছে: ইসলামী আন্দোলন


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৮.১২.২০২৩


ডেস্ক রিপোর্ট:

সরকার দেউলিয়া হয়ে ‘একতরফা’ ও ‘প্রহসনের’ নির্বাচন করছে বলে দাবি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের। একই সঙ্গে আগামী ৭ জানুয়ারির নির্বাচন রুখে দেওয়ার কথা জানিয়েছেন দলটির নেতারা।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন। নির্বাচনী তফশিল বাতিল, সব রাজবন্দিদের মুক্তি, বর্তমান সংসদ ভেঙে দিয়ে জাতীয় সরকারের অধীনে সংখ্যানুপাতিক (পিআর) পদ্ধতিতে জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে এ বিক্ষোভ সমাবেশ করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ।

সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার গত ১৫ বছরে দেশের সব সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করেছে। জাতীয় অর্থনীতি এখন ভয়াবহভাবে বিপর্যস্ত। ব্যাংকগুলোর আমানত ও দেশের রিজার্ভ লুটপাটের কারণে অর্থনীতি এখন ভয়াবহভাবে বিপর্যস্ত। ক্ষমতার মোহে অন্ধ হয়ে সরকার এখন গার্মেন্ট শিল্পকে মারাত্মক ঝুঁকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

জনগণ যখন অভাবের তাড়নায় দিশেহারা, তখন সরকার খেল-তামাশার নির্বাচন নিয়ে আনন্দ-উল্লাস করছে। আগামী ৭ জানুয়ারি বিরোধী দলবিহীন প্রহসনের নির্বাচন দেশবাসী রুখে দেবে।’

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘এখনো সময় আছে অবৈধ সংসদ ভেঙে দিয়ে জাতীয় সরকারের অধীনে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় দেশের জনগণ যেভাবে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ফুসে উঠছে, তাতে সরকারের আখের রক্ষা হবে না। স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগ জনসমর্থন হারিয়ে দেউলিয়া হয়ে পড়েছে। সরকার দল প্রশাসননির্ভর হয়ে পড়ছে। জনগণের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। সরকার দেশকে ধ্বংস করে দিয়েছে। দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর প্রচণ্ড বিরোধিতা এবং আন্তর্জাতিক মহলের মতামতকে উপেক্ষা করে সরকার একতরফা প্রহসনের নির্বাচন করার অপরিণামদর্শী খেলায় মেতে উঠেছে। জনগণের রায়ের বিরুদ্ধে গিয়ে নির্বাচন করলে এটা দেশবাসী মানবে না। প্রহসনের নির্বাচনের আয়োজন থেকে সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে ফিরে আসতে হবে।’

জনগণকে আসন্ন নির্বাচন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানি বলেন, ‘পাতানোর নির্বাচনে কেউ কোনো সহযোগিতা ও ভোটদান করবেন না। এবার বেচাকেনার হাটের মতো প্রার্থী ও দলকে নির্বাচনে আনা হয়েছে। আওয়ামী লীগের ১৪ দলের ইনু-রাশেদ খান মেনন খুব পেরেশানিতে আছেন তাদের সিট কনফার্ম না পেয়ে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তৃণমূল বিএনপি আওয়ামী লীগের তল্পিবাহক। টাকা ও সিট ছেড়ে আওয়ামী লীগ তাদের নিয়েছে। ইসলামী আন্দোলন মানুষের সঙ্গে আছে, প্রয়োজনে রক্ত দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার উৎখাত করবে। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল বাতিল করতে হবে। সবার সঙ্গে আলোচনা করে স্বচ্ছ নির্বাচন করতে হবে। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মত নির্বাচন আমরা চাই না। ৭ জানুয়ারির নির্বাচন থেকে সরকারকে ব্যাক করানোর জন্য ইসলামী আন্দোলন রাজপথে নেমেছে। সরকারকে বলবো ফিরে আসুন। আগামীতে যে রক্তপাত, গৃহযুদ্ধ হবে এর দায়দায়িত্ব আওয়ামী লীগ সরকারকেই নিতে হবে।’

সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ বলেন, আগামী ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় পতাকা র্যালি করবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। বিকালে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘দেশের সম্পদ নষ্ট করে সরকার প্রহসনের নির্বাচন করছে। পছন্দের প্রার্থীদের তালিকা ঘোষণা করে দিলে অন্তত দেশের সম্পদ নষ্ট হতো না। পাতানোর নির্বাচনে খরচকৃত টাকার হিসাব জনগণ নেবে। তিনি শিক্ষা কারিকুলামের মাধ্যমে প্রজন্মকে মেধাশূন্য করার চক্রান্ত থেকে সরকারকে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, নতুন শিক্ষা কারিকুলামের বই বিতরণ করা যাবে না। কোনো ছাত্র-ছাত্রী এই বই পড়বে না।’

সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি ও সহকারী মহাসচিব প্রিন্সিপাল মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কেএম আতিকুর রহমান, প্রচার ও দাওয়াহ সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা মোহাম্মদ নেছার উদ্দিন, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, মাওলানা নূরুল ইসলাম নাঈম, ডা. শহিদুল ইসলাম, নুরুজ্জামান সরকার, মুফতী ফরিদুল ইসলাম, মাওলানা কেএম শরিয়াতুল্লাহ, হাফেজ মাওলানা মাকসুদর রহমান ও মুফতী মাছউদুর রহমান।

সমাবেশ শেষে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট থেকে পল্টন মোড়, বিজয়নগর পানির ট্যাংকি হয়ে পুনরায় বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশে। মিছিলে সহস্রাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি