বৃহস্পতিবার,২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


ইন্দোনেশিয়ায় রোহিঙ্গাবোঝাই নৌকাডুবি


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২১.০৩.২০২৪


ডেস্ক রিপোর্ট:

ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশের পশ্চিম উপকূলে রোহিঙ্গা যাত্রীবোঝাই নৌকাডুবে নিখোঁজ হয়েছেন বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা। যাত্রীদের মধ্যে মাত্র ৬ জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে, বাকিরা সাগরের স্রোতে ভেসে গেছেন।

পশ্চিম আচেহ’র মৎসজীবী সমাজের অন্যতম নেতা নন্দ ফেরদিয়ানসিয়াহ বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেন, বুধবার স্থানীয় সময় সকাল ৮ টার দিকে পশ্চিম আচেহ’র উপকূলে একটি রোহিঙ্গা যাত্রীবাহী নৌকা ডুবতে থাকা অবস্থায় দেখতে পেয়ে যাত্রীদের উদ্ধারে এগিয়ে আসে স্থানীয় একটি মাছধরা নৌকা।

মাছধরা নৌকাটি সেখানে পৌঁছানোর পর ডুবতে থাকা নৌকাটির যাত্রীদের সবাই সেই নৌকায় উঠে পড়েন; কিন্তু এত যাত্রী নেওয়ার মতো ক্ষমতা মাছ ধরা নৌকাটির ছিল না। ফলে সেটিও ডুবে যায়।

নৌকাটিতে কতজন রোহিঙ্গা যাত্রী ছিল, তা এখনও জানা যায়নি। পশ্চিম আচেহ’র মৎসজীবী সমাজের সেক্রেটারি জেনারেল পাওয়াং আমিরুদ্দিন এক বিবৃতিতে বলেন, সাগরের যে এলাকায় নৌকা দু’টি ডুবেছে, সেটি পশ্চিম আচেহর কুয়ালা ‍বুবন শহরের সাগর তীর থেকে ১১ কিলোমিটার দূরে।

‘মাছ ধরা নৌকাটি ঘটনাস্থলে যাওয়া মাত্র ওই ডুবতে থাকা নৌকা থেকে যাত্রীদের সবাই হুড়মুড় করে (মাছ ধরা নৌকায়) উঠতে থাকেন। সবাই ওঠার পর যাত্রীদের ভারে মাছ ধরা নৌকাটিও ডুবে যায়। সাগরে এ সময় ব্যাপক স্রোত ছিল। মাত্র ৬ জন যাত্রীকে উদ্ধার করতে পেরেছেন মৎসজীবীরা। বাকিরা স্রোতে ভেসে গেছে,’— বিবৃতিতে বলেন পাওয়ান আমিরুদ্দি।

সাগরে ভেসে যাওয়া রোহিঙ্গারা বেঁচে আছে কি না— সে সম্পর্কে বিবৃতিতে কিছু বলা হয়নি।

জাতিসংঘের শরণার্থী সংক্রান্ত সংস্থা ইউএনএইচসিআর এ ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এক বিবৃতিতে দাবি করেছে, নৌকাটিতে একশ’র কাছাকাছি বা তারও বেশি সংখ্যক রোহিঙ্গা ছিল।

‘আমরা আশা করছি (ডুবে বা ভেসে যাওয়া) রোহিঙ্গাদের উদ্ধারে ইন্দোনেশিয়ার সরকার শিগগির তৎপরতা শুরু করবে। এটা জরুরি অবস্থা,’ বিবৃতিতে বলেছে ইউএনএইচসিআর।

এ ইস্যুতে বিস্তারিত তথ্য জানতে ইন্দোনেশিয়ার কেন্দ্রীয় সরকার, আচেহ প্রদেশের স্থানীয় সরকার ও পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল এএফপি, তবে কোনো পক্ষই মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

প্রসঙ্গত, বিশ্বের অন্যতম নিপীড়িত নৃগোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের সবচেয়ে পছন্দের দুই গন্তব্য মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়া। সম্প্রতি মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশ এবং বাংলাদেশের কক্সবাজারের শরণার্থী শিবির থেকে এই দুই গন্তব্যের দিকে ‘জোয়ারের মতো’ ছুটছেন রোহিঙ্গারা।

ইউএনএইচসিআরের তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালের নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ২০২৪ সালের জানুয়ারির শেষ পর্যন্ত সাগরপথে ইন্দোনেশিয়ার আচেহ এবং উত্তর সুমাত্রায় পৌঁছেছেন অন্তত ১ হাজার ৭৫২ জন রোহিঙ্গা শরণার্থী। এই শরণার্থীদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ নারী-শিশু।

সূত্র : এএফপি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি