রবিবার,১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


যে পাঁচ কারণে হারলো বিজেপি


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৩.০৫.২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

নরেন্দ্র মোদির জাদুতে যেন হাওয়ায় ভাসছিল বিজেপি। আগেরবার পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় যাদের আসন সংখ্যা ছিল ৩, তারা এবার ঘোষণা দিয়েছিল জিতবে ২০০টিতে।

কিন্তু ভোটের ফলে দেখা গেল, আকাশে ওঠার সেই স্বপ্ন থেকে তাদের মাটিতে নামিয়ে এনেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

অনেক হিসাব-নিকাষের পরেও কাঙ্ক্ষিত ফলের কাছে যেতে পারেননি মোদি-অমিতরা। তাদের এই হারের পাঁচটি কারণ দেখছেন দলটির রাজ্য নেতারা।-খবর আনন্দবাজার পত্রিকা

• ব্যক্তিত্বের অভাব। রাজ্য বিজেপি নেতারা প্রচারে অনেক ঘাম ঝরালেও জনগণের সামনে কোনও মুখ তুলে ধরতে পারেননি। এই সিদ্ধান্ত ছিল বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বেরই।

নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরা বারবার বাংলার ‘ভূমিপুত্র’-ই মুখ্যমন্ত্রী হবেন বলে জানিয়েছেন। তারা আলাদা করে কারও নাম বলেননি। অন্য দিকে, তৃণমূলের মুখ ছিলেন ১০ বছর মুখ্যমন্ত্রী থাকা মমতা ব্যানার্জি।

• পশ্চিমবঙ্গের কোনও নেতাকে মুখ হিসেবে তুলে না ধরার জন্য নীলবাড়ির লড়াইয়ে বড় বেশি নির্ভরতা ছিল কেন্দ্রীয় নেতদের ওপরে। আর সেই নির্ভরতাকে ‘বহিরাগত’ আখ্যায়িত দিয়ে আক্রমণ করেছে তৃণমূল।

বিজেপির প্রাথমিক ধারণা, মমতাসহ তৃণমূলের এই আক্রমণকেই সমর্থন দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ।

• রাজ্য বিজেপি আরেকটি কারণকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। দলের বক্তব্য—২০১৬ সালে বিজেপি রাজ্যে মাত্র ৩টি আসনে জিতেছিল। সেখান থেকে একেবারে ক্ষমতায় আসার যে লক্ষ্য স্থির করা হয়েছিল তা দলের অভিজ্ঞতার তুলনায় অনেকটাই বেশি। লোকসভা নির্বাচনের ফলকে বিধানসভা ভোটের ক্ষেত্রেও প্রাধান্য দেওয়া ঠিক হয়নি। তাই এই হারকে বড় মনে হচ্ছে।

• মেরুকরণকে হাতিয়ার করে ফায়দা তুলতে চেয়েছিল বিজেপি। প্রচারের সময় অনেক ক্ষেত্রেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে তোষণের অভিযোগ তুলতে কড়া ভাষা প্রয়োগ করেছেন নেতারা। রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব মনে করছে, এর ফলে মুসলিম ভোট এককাট্টা হলেও হিন্দু ভোটের সিংহভাগ ঝুলিতে টানা যায়নি।

• বিজেপিতে ‘নতুন’ ও ‘পুরনোদের’ দ্বন্দ্ব বহুদিনের। গত লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে দলের মধ্যে গণ্ডগোল দেখা দিয়েছে।

কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনের আগে আগে তৃণমূল থেকে যারা এসেছেন, তাদের প্রাধান্য দেওয়া দলের কর্মী, সমর্থক এবং ভোটটাররা ভাল চোখে নেননি বলেই মনে করছে বিজেপি।

পাশাপাশি রাজ্য নেতাদের বক্তব্য—রাজ্যের সর্বত্রই প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে অনেক ভুল ছিল।

কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস গড়ে এক সময় বিজেপির হাত ধরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হওয়া মমতা সম্প্রতি বিজেপির প্রধানমন্ত্রীর মোদির চরম বিরোধী হিসেবেই পরিচিত করেছেন নিজেকে।

ভারতের পার্লামেন্টে বিজেপির একচ্ছত্র আধিপত্যে প্রধান বিরোধী দল বলে কিছু যখন নেই, তখন মমতাকে নিজেদের কণ্ঠস্বর ভাবছেন আঞ্চলিকসহ সর্বভারতীয় দলগুলোর নেতারাও।

আসাম ও ত্রিপুরা করায়ত্ত করে পশ্চিমবঙ্গকে পাখির চোখ করেছিলেন মোদি। ফলে এবারের বিধানসভা নির্বাচন ‘মোদী ভার্সাস মমতার’ লড়াইয়ে রূপ নিয়েছিল।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি