শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


দেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে : কাদের


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৬.১১.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। উন্নয়ন-অর্জনকে বাঁচাতে হলে ক্ষমতার মঞ্চে শেখ হাসিনার কোনও বিকল্প নেই।

শনিবার (২৬ নভেম্বর) রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহিলা আওয়ামী লীগের ষষ্ঠ ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে যোগ দিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এজন্যই আরেকবার দরকার, শেখ হাসিনা সরকার। তিনি নারী জাতির গর্ব। শেখ হাসিনা আছেন বলে বাবার সঙ্গে মায়ের নাম লেখা হয়। প্রশাসনসহ সর্বত্র নারীরা আছেন। এটি শেখ হাসিনার অবদান।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা করা হয়েছে। জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধু খুনিদের পুরস্কৃত করেছেন। ইন্ডেমনিটি দিয়ে বিচার বন্ধ করেছেন। তার ছেলে তারেক জিয়া ২১ আগস্ট গ্রনেড হামলা করে শেখ হাসিনা হত্যা চেষ্টা করেছেন।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশ রুপকার ও আওয়ামী লীগের সাহসের ঠিকানা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৯৭৫ সালের বিদেশে ছিলেন বলেই বেঁচে গেছেন শেখ হাসিনা। তিনি বেঁচে না থাকলে আজ দেশের অবস্থা কী হতো? এতো উন্নয়ন অগ্রগতি কখনও হতো না।

টানা তিনবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখনও বিএনপির টার্গেট মন্তব্য করে তিনি বলেন, তারা শেখ হাসিনাকে নিশ্চিহ্ন করতে চায়। শেখ হাসিনার উন্নয়ন দেখে তাদের অন্তরে জ্বালা ধরেছে। বৈশ্বিক সমস্যার কারণে জ্বালানি সংকট তৈরি হয়েছে। লোডশেডিং থেকে নিস্তার পেতে শেখ হাসিনা দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ আওয়ামী লীগ ও মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। সম্মেলনে শোক প্রস্তাব উত্থান করেন মহিলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক রোজিনা রোজি।

এর আগে দুপুর সোয়া ২টায় কোরআন তিলাওয়াতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা। ২টা ৫০ মিনিটে সম্মেলনের মঞ্চে আসেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানান মহিলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। জবাবে নেতাকর্মীদের হাত নেড়ে অভিবাদন জানান তিনি। পরে ফুল দিয়ে শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানানো হয়।

এদিন সকাল থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে মহিলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সম্মেলন স্থলে আসতে শুরু করেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে উপস্থিতির সংখ্যাও। সম্মেলনকে ঘিরে পুরো উদ্যান ও আশপাশের এলাকায় বিভিন্ন ধরনের ব্যানার, প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুনে শোভা পাচ্ছে। শাহবাগ চত্বর থেকে মৎস্য ভবন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে দোয়েল চত্বর, হাইকোর্ট চত্বরে মহিলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পদচারণে মুখরিত।

এদিকে, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশীদের অনুসারীদের নানা ধরণের স্লোগান দিতে দেখা গেছে। এই দুই পদের বিপরীতে প্রায় ৪০ জন তাদের জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে। সম্মেলন থেকে শীর্ষ দুই নেতৃত্বের নাম ঘোষণা করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন নেতারা।

প্রসঙ্গত, মহিলা আওয়ামী লীগের ৫ম জাতীয় জাতীয় সম্মেলন হয়েছিল ২০১৭ সালের ৪ মার্চ। সে সময় সংগঠনটির সভাপতির দায়িত্ব পান সাফিয়া খাতুন, সাধারণ সম্পাদক হন মাহমুদা বেগম।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি