সোমবার,২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


দুর্বৃত্তের হামলায় আহত সাংবাদিক নাদিমের মৃত্যু


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৫.০৬.২০২৩

ডেস্ক রিপোর্ট:

জামালপুরের বকশীগঞ্জে দুর্বৃত্তের হামলায় আহত সাংবাদিক গোলাম রাব্বানি নাদিম মারা গেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) বেলা ৩টার কিছু পর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক জাকিউল ইসলাম সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিমের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নিহত গোলাম রাব্বানি নাদিম বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের জামালপুর জেলা প্রতিনিধি ছিলেন। তার মৃত্যুর খবরে সাংবাদিক কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এর আগে, বুধবার (১৪ জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে বকশীগঞ্জ সরকারি কলেজ এলাকার পাথাটিয়ার ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বুথের সামনে দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত হন তিনি। পরে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য জামালপুর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। আজ সকালে তার অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে নেওয়া হয় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বেলা ৩টার কিছু পর তিনি মারা যান।

জানা যায়, অফিসের কাজ শেষে রাত ১০টার দিকে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিম ও তার সহকর্মী আল মুজাহিদ বাবু। পথে বকশীগঞ্জ পাথাটিয়ায় পৌঁছালে অতর্কিত সামনে থেকে আঘাত করে চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দেওয়া হয় নাদিমকে। এরপর ১০-১২ জন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সড়ক থেকে মারধর করতে করতে টেনেহিঁচড়ে এক অন্ধকার গলিতে নিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করে তাকে। সে সময় সহকর্মী মুজাহিদ তাদের আটকাতে গেলে তাকেও মারধর করে তারা।

আহত নাদিমের স্ত্রী মনিরা বেগম জানান, আমি ফোনে খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে দেখি তাকে অনেক আঘাত করা হয়েছে। তার অবস্থা ভালো না। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচার চাই।

বকশীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি শাহীন আল আমিন জানান, অসৎ উদ্দেশ্যে সাংবাদিক নাদিমকে গুরুতর আহত করা হয়েছে। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। অবিলম্বে এর সুষ্ঠু তদন্তসাপেক্ষে দুষ্কৃতকারীদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।

বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সোহেল রানা জানায়, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। হাসপাতালে আমি তার সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছি। অবস্থা খারাপ থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য জামালপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সিসি ক্যামেরা দেখে ঘটনার সঙ্গে জড়িত রেজাউল নামে একজনকে আমরা চিহ্নিত করতে পেরেছি। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে। বাকিদের খুব দ্রুত চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি